দুপুর ২:৪২ | মঙ্গলবার | ২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঈদের পূর্বে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার পাচ্ছে না হালুয়াঘাটের ধুরাইলবাসী! ভিডিও

বিল্লাল হোসেন প্রান্তঃ

প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার আড়াই হাজার টাকা ঈদের পূর্বে না পাওয়ার উপক্রম হয়েছে হালুয়াঘাট ১০ নং ধুরাইল ইউনিয়নের উপকারভোগীদের। উপজেলা প্রশাসন একাধিকবার চেয়ারম্যানের দেয়া তালিকা সংশোধন করলেও রয়ে গেছে বিস্তর গড়মিল ও অনিয়ম। দুটি মোবাইল নম্বরের বিপরীতে ৫৪ জনের নাম থাকায় তালিকা সংশোধন করা হলেও ফের ১২ বার ওঠানো হয়েছে তিনটি নম্বর। নম্বরগুলো ওই চেয়ারম্যানের সহোদর ভাই ও মামাতো ভাই কাম ব্যাক্তিগত সহকারীর বলে জানা গেছে।

 

 

এ ঘটনায় ১০ নং ধুরাইল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ ওয়ারিছ উদ্দিন সুমনের বিরুদ্ধে ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসকসহ উর্ধতন কতৃপক্ষ বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ইউনিয়ন যুবলীগ আহবায়ক প্রভাষক মোঃ জসিম উদ্দিন তালুকদার।

 

 

অভিযোগে জানা যায়, গত ১০ মে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত অর্থ সহায়তার আওতায় ১০ নং ধুরাইল ইউনিয়নে ৪৬০ জনের একটি তালিকা প্রকাশ করে হালুয়াঘাট উপজেলা প্রশাসন। এতে চেয়ারম্যানের মামাতো ভাই আব্দুর রহিমের ব্যবহৃত মোবাইল ০১৯৭৩০৪৯৭৯৭ ও ০১৭২৩৪০৯৭৯৭ নম্বর দুটি ৫৪ বার ওঠানো হয়। এছাড়াও তালিকায় আরও বেশকয়েটি নম্বর একাধিকবার অন্তর্ভূক্ত করা হয়।

 

 

এঘটনায় এলাকাবাসী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সহ বিভিন্ন মাধ্যমে সমালোচনা মূখর হয়ে উঠলে গত ১৪ মে তা সংশোধন করে পূনরায় নতুন তালিকা প্রকাশ করে উপজেলা প্রশাসন। সংশোধিত সেই তালিকায়ও একই রকম অনিয়ম পরিলক্ষিত হয়। যা নিয়ে জেলাব্যাপী ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

 

 

সংশোধিত তালিকায় চেয়ারম্যানের সহোদর ভাই মোঃ শফিক উদ্দিন রিপনের ৩টি নম্বর যথাক্রমে ০১৭৩৯১৫৯২৮৪, ০১৬৪৩৮৫২০৪০, ০১৮২১২৭৪৪৪৫ এর বিপরীতে ১২ জনের নাম রয়েছে। মামাতো ভাই আব্দুর রহিমের ০১৯৭৩০৪৯৭৯৭ নম্বর ওঠানো হয়েছে ৩ বার। রয়েছে রহিমের স্ত্রী হালিমা খাতুনের নামও। একাধিকবার ব্যবহৃত প্রতিটি নম্বরের প্রেক্ষিতে উপকারভোগীর নাম ও ঠিকানা স্থানীয় জনগনের হলেও তারা এই বিষয়ে অবগত নন বলে সূত্র জানায়।

 

 

নগদ অর্থ পাওয়ার তালিকায় রিকশাচালক, ভ্যানচালক, দিনমজুর, নির্মাণশ্রমিক, কৃষিশ্রমিক, বাস-ট্রাকের পরিবহন শ্রমিকসহ নিম্ন আয়ের নানা পেশার মানুষের নাম থাকার নির্দেশনা থাকলেও স্বজনপ্রীতি, দুস্থদের পরিবর্তে বিত্তশালীদের নাম তালিকায় যুক্ত করা হয়েছে বলে এ ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে । ফলে কর্মহীন দুস্থ মানুষ প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার থেকে বঞ্চিতের উপক্রম হয়েছে এখানে।

 

 

১০নং ধুরাইল ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোঃ ফারুক মিয়া অভিযোগ করে বলেন, প্রকাশিত তালিকার ১২৩নং ক্রমিকে  তার নাম ও পিতার নাম ঠিক থাকলেও মোবাইল নম্বর দেয়া আছে অন্যকারো। তার নাম তালিকায় আছে তিনি সেটিও জানতেন না। সম্প্রতি তিনি বিষয়টি জেনে হতবাক।

 

 

এ প্রসঙ্গে হালুয়াঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রেজাউল করিম বলেন, ১০ নং ধুরাইল ইউনিয়নের তালিকায় কিছু ভূল ত্রুটি যাচাই বাছাইয়ে ধরা পড়েছে। এ ঘটনায় ট্যাগ অফিসার ও ইউপি চেয়ারম্যানকে শোকজ করা হয়েছে। গত ১৪ মে তালিকাটি সংশোধন করা হয়েছে।

 

 

সংশোধিত তালিকায় চেয়ারম্যানের পরিবারের কারও নাম বা নম্বর আছে কিনা তা জানা নেই জানিয়ে ইউএনও বলেন,যদি থেকে থাকে তারা পাবে না। তালিকাগুলো অতি অল্প সময়ে প্রনয়ণ করার কারণে কিছু ভূল ত্রুটি হয়ে থাকতে পারে। যাচাই বাছাই পূর্বক ঈদের পূর্বে তালিকা দেয়া গেলে উপকারভোগীরা অর্থ সহায়তা পাবে নয়তো ঈদের পরে পাবে বলেও তিনি জানান।

 

 

এ বিষয়ে অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান ওয়ারিছ উদ্দিন সুমন বলেন, তালিকাটি অতি দ্রুত প্রণয়ন করায় কিছু ভূল ত্রুটি হয়েছে যা সংশোধন করা হয়েছে। আমার পরিবারের কারও নাম বা মোবাইল নম্বর তালিকায় থাকলে তা আমার জানা নেই। একটি পক্ষ আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করতে চক্রান্ত করছে।

 

 

নগদ অর্থ সহায়তা কার্যক্রমে উপকারভোগীদের তালিকা প্রণয়নে অনিয়মের ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার জোর দাবি জানিয়েছে ইউনিয়ন যুবলীগের একাধিক নেতাকর্মী ও সাধারণ জনগণ। তারা বলেন, সুবিধাভোগীর নামের পাশে যারা নিজের মোবাইল নম্বরটি জুড়ে দিয়ে অপকৌশলের আশ্রয় নিয়েছে তারা প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা কার্যক্রমকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করেছে।

Print Friendly, PDF & Email

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» নাসিরাবাদ কলেজ গর্ভনিং বডির কমিটি বহাল রেখেছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ

» দ্বিতীয় দফায় এমপি মোহিত উর রহমানের ফ্রি চক্ষু সেবা

» প্রয়াত মতিউর রহমানের স্নেহধন্য আবু সাঈদ জনতার ভালোবাসা

» অস্ত্র মামলায় কাউন্সিলর নোমানের ১০ বছর কারাদণ্ড

» আমি বাংলাদেশের সবচাইতে অজনপ্রিয় সাংসদ হবো- মোহিত উর রহমান শান্ত

» ময়মনসিংহ ডিবির অভিযানে ৪ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

» তাপদাহ প্রশমনে ময়মনসিংহ মহানগর যুবলীগের উদ্যোগে পানি-জুস-সেলাইন বিতরণ

» এমপি মোহিত উর রহমানের সহায়তায় ১১০ জনের চোখের ছানি অপারেশন সম্পন্ন

» উপজেলা চেয়ারম্যান পদে আশরাফ-সাঈদ প্রতিদ্বন্দ্বিতার আভাস, ১৪ জন বৈধ ঘোষিত

» আগামীকাল ময়মনসিংহ মেতে উঠবে স্বাধীনতা কনসার্টে

» ভাষা শহীদদের প্রতি সংসদ সদস্য মোহিত উর রহমান শান্তর শ্রদ্ধাঞ্জলী

» ১৪৭ বেকার তরুণ তরুণীকে চাকুরির প্রস্তুতি কর্মশালা করালেন এমপি মোহিত উর রহমান শান্ত

» হালুয়াঘাট-ধোবাউড়ায় ৯ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ বৃদ্ধি ; কৃষি সেচে গুরুত্ব এমপির

» ময়মনসিংহ সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আলোচনায় আবু সাঈদ

» সংবর্ধনা বাতিল করে শীতার্তদের মাঝে এমপি মোহিত উর রহমানের কম্বল বিতরণ

আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

২২ সি কে ঘোষ রোড, ময়মনসিংহ
বার্তা কক্ষ : ০১৭৩৬ ৫১৪ ৮৭২
ইমেইল : dailyjonomot@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার দৈনিক জনমত .কম

কারিগরি সহযোগিতায় BDiTZone.com

,

basic-bank

ঈদের পূর্বে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার পাচ্ছে না হালুয়াঘাটের ধুরাইলবাসী! ভিডিও

বিল্লাল হোসেন প্রান্তঃ

প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার আড়াই হাজার টাকা ঈদের পূর্বে না পাওয়ার উপক্রম হয়েছে হালুয়াঘাট ১০ নং ধুরাইল ইউনিয়নের উপকারভোগীদের। উপজেলা প্রশাসন একাধিকবার চেয়ারম্যানের দেয়া তালিকা সংশোধন করলেও রয়ে গেছে বিস্তর গড়মিল ও অনিয়ম। দুটি মোবাইল নম্বরের বিপরীতে ৫৪ জনের নাম থাকায় তালিকা সংশোধন করা হলেও ফের ১২ বার ওঠানো হয়েছে তিনটি নম্বর। নম্বরগুলো ওই চেয়ারম্যানের সহোদর ভাই ও মামাতো ভাই কাম ব্যাক্তিগত সহকারীর বলে জানা গেছে।

 

 

এ ঘটনায় ১০ নং ধুরাইল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ ওয়ারিছ উদ্দিন সুমনের বিরুদ্ধে ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসকসহ উর্ধতন কতৃপক্ষ বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ইউনিয়ন যুবলীগ আহবায়ক প্রভাষক মোঃ জসিম উদ্দিন তালুকদার।

 

 

অভিযোগে জানা যায়, গত ১০ মে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত অর্থ সহায়তার আওতায় ১০ নং ধুরাইল ইউনিয়নে ৪৬০ জনের একটি তালিকা প্রকাশ করে হালুয়াঘাট উপজেলা প্রশাসন। এতে চেয়ারম্যানের মামাতো ভাই আব্দুর রহিমের ব্যবহৃত মোবাইল ০১৯৭৩০৪৯৭৯৭ ও ০১৭২৩৪০৯৭৯৭ নম্বর দুটি ৫৪ বার ওঠানো হয়। এছাড়াও তালিকায় আরও বেশকয়েটি নম্বর একাধিকবার অন্তর্ভূক্ত করা হয়।

 

 

এঘটনায় এলাকাবাসী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সহ বিভিন্ন মাধ্যমে সমালোচনা মূখর হয়ে উঠলে গত ১৪ মে তা সংশোধন করে পূনরায় নতুন তালিকা প্রকাশ করে উপজেলা প্রশাসন। সংশোধিত সেই তালিকায়ও একই রকম অনিয়ম পরিলক্ষিত হয়। যা নিয়ে জেলাব্যাপী ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

 

 

সংশোধিত তালিকায় চেয়ারম্যানের সহোদর ভাই মোঃ শফিক উদ্দিন রিপনের ৩টি নম্বর যথাক্রমে ০১৭৩৯১৫৯২৮৪, ০১৬৪৩৮৫২০৪০, ০১৮২১২৭৪৪৪৫ এর বিপরীতে ১২ জনের নাম রয়েছে। মামাতো ভাই আব্দুর রহিমের ০১৯৭৩০৪৯৭৯৭ নম্বর ওঠানো হয়েছে ৩ বার। রয়েছে রহিমের স্ত্রী হালিমা খাতুনের নামও। একাধিকবার ব্যবহৃত প্রতিটি নম্বরের প্রেক্ষিতে উপকারভোগীর নাম ও ঠিকানা স্থানীয় জনগনের হলেও তারা এই বিষয়ে অবগত নন বলে সূত্র জানায়।

 

 

নগদ অর্থ পাওয়ার তালিকায় রিকশাচালক, ভ্যানচালক, দিনমজুর, নির্মাণশ্রমিক, কৃষিশ্রমিক, বাস-ট্রাকের পরিবহন শ্রমিকসহ নিম্ন আয়ের নানা পেশার মানুষের নাম থাকার নির্দেশনা থাকলেও স্বজনপ্রীতি, দুস্থদের পরিবর্তে বিত্তশালীদের নাম তালিকায় যুক্ত করা হয়েছে বলে এ ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে । ফলে কর্মহীন দুস্থ মানুষ প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার থেকে বঞ্চিতের উপক্রম হয়েছে এখানে।

 

 

১০নং ধুরাইল ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোঃ ফারুক মিয়া অভিযোগ করে বলেন, প্রকাশিত তালিকার ১২৩নং ক্রমিকে  তার নাম ও পিতার নাম ঠিক থাকলেও মোবাইল নম্বর দেয়া আছে অন্যকারো। তার নাম তালিকায় আছে তিনি সেটিও জানতেন না। সম্প্রতি তিনি বিষয়টি জেনে হতবাক।

 

 

এ প্রসঙ্গে হালুয়াঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রেজাউল করিম বলেন, ১০ নং ধুরাইল ইউনিয়নের তালিকায় কিছু ভূল ত্রুটি যাচাই বাছাইয়ে ধরা পড়েছে। এ ঘটনায় ট্যাগ অফিসার ও ইউপি চেয়ারম্যানকে শোকজ করা হয়েছে। গত ১৪ মে তালিকাটি সংশোধন করা হয়েছে।

 

 

সংশোধিত তালিকায় চেয়ারম্যানের পরিবারের কারও নাম বা নম্বর আছে কিনা তা জানা নেই জানিয়ে ইউএনও বলেন,যদি থেকে থাকে তারা পাবে না। তালিকাগুলো অতি অল্প সময়ে প্রনয়ণ করার কারণে কিছু ভূল ত্রুটি হয়ে থাকতে পারে। যাচাই বাছাই পূর্বক ঈদের পূর্বে তালিকা দেয়া গেলে উপকারভোগীরা অর্থ সহায়তা পাবে নয়তো ঈদের পরে পাবে বলেও তিনি জানান।

 

 

এ বিষয়ে অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান ওয়ারিছ উদ্দিন সুমন বলেন, তালিকাটি অতি দ্রুত প্রণয়ন করায় কিছু ভূল ত্রুটি হয়েছে যা সংশোধন করা হয়েছে। আমার পরিবারের কারও নাম বা মোবাইল নম্বর তালিকায় থাকলে তা আমার জানা নেই। একটি পক্ষ আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করতে চক্রান্ত করছে।

 

 

নগদ অর্থ সহায়তা কার্যক্রমে উপকারভোগীদের তালিকা প্রণয়নে অনিয়মের ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার জোর দাবি জানিয়েছে ইউনিয়ন যুবলীগের একাধিক নেতাকর্মী ও সাধারণ জনগণ। তারা বলেন, সুবিধাভোগীর নামের পাশে যারা নিজের মোবাইল নম্বরটি জুড়ে দিয়ে অপকৌশলের আশ্রয় নিয়েছে তারা প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা কার্যক্রমকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করেছে।

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ খবর



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

২২ সি কে ঘোষ রোড, ময়মনসিংহ
বার্তা কক্ষ : ০১৭৩৬ ৫১৪ ৮৭২
ইমেইল : dailyjonomot@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার দৈনিক জনমত .কম

কারিগরি সহযোগিতায় BDiTZone.com