রাত ৮:৩৪ | শনিবার | ২০শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কিশোর গ্রুপ উন্মুক্ততায় শাওন হত্যাকান্ড; রহস্য উন্মোচন, গ্রেফতার ৭

*ময়মনসিংহে আশংকাজনক কিশোর গ্যাং; হাতে সুইস গিয়ার?*

 

বিল্লাল হোসেন প্রান্তঃ
ময়মনসিংহে চাঞ্চল্যকর শাওন ভট্টাচার্য হত্যাকান্ডের রহস্য বা নেপথ্যের ঘটনা উন্মোচন করেছে পুলিশ। পূজা মন্ডপে উঠতি বয়সী কিশোরদের মদ্যপ অবস্থায় নাচানাচি ও বাকবিতণ্ডার জেরে এ হত্যাকান্ড সংগঠিত হয় বলে জানিয়ে পুলিশ। হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত ৭ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

 

 

৮ অক্টোবর ময়মনসিংহ নগরীর গোলপুকুরপাড় পূজা মন্ডপে কলেজ শিক্ষার্থী শাওনের বুকে ধারালো ছুড়ির আঘাতে মৃত্যু হয়। সে ময়মনসিংহ কমার্স কলেজের ২য় বর্ষের ছাত্র ছিলো।

ঘটনার একদিন পর ১০ অক্টোবর হত্যাকান্ডের পুরো দিক উল্লেখ করে সাংবাদিক সম্মেলন করেছে জেলা পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন। তিনি বলেন, হত্যার সাথে জড়িতরা সবাই কিশোর। বয়স ১৮ থেকে ১৯ এর মধ্যে। নগরীর বিভিন্ন এলাকায় বসবাসকারী এই কিশোররা একে অপরের সাথে পরিচিত। তবে তাদের মধ্যে তিনটি গ্রুপে ভাগ ছিলো।

 

 

এসপি বলেন, হত্যাকান্ডের সময় এরা সবাই মধ্যপ ছিলো। প্রতিমা বিসর্জনের আগ মুহূর্তে বিকট সাউন্ডে গান ছেড়ে নাচানাচি করে। এক সময় সেখানে থাকা আবির গ্রুপের সাথে মাহিন গ্রুপের ধাক্কাধাক্কি হয়। মূহুর্তেই মুন্না গ্রুপ, মাহিন গ্রুপ ও আবির গ্রুপের মধ্যে ত্রিমুখি মারপিট শুরু হয়। ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে মাহিনের পকেট থেকে বের করা সুইজ গিয়ার বের করে প্রথমে আবির ও পরে শাওনের বুকে আঘাত করে। এতে আবির আহত হয়, শাওন মৃত্যুবরণ করে।

 

 

 

ঘটনার খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে আসেন জেলা পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন, কোতোয়ালী ওসি মাহমুদুল ইসলাম, ওসি ডিবি শাহ কামাল আকন্দ। ওই সময়ই ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে জিগ্যাসাবাদের জন্য চারজনকে আটক করে পুলিশ। পরের দিন হত্যাকান্ডের মূল হোতা মাহিন আদালতে ১৬৪ ধরায় স্বীকারক্তিমূলক জবানবন্দী দেয়। এ ঘটনায় নিহত শাওন ভট্টাচার্যের বাবা শুভাশিষ ভট্টাচার্য কোতোয়ালী মডেল থানায় ৯ জনের নাম উল্লেখ করে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

হত্যাকান্ডে জড়িত এজাহার নামিয় গ্রেফতারকৃত ৭ আসামিরা হলেন, মাহফুজুল ইসলাম মাহিন (১৮), আকাশ চন্দ দে(১৫), সারোয়ার উদ্দিন হৃদয় (১৮), ফারদিন(১৯), সাজ্জাদ(১৯), মুন্না(১৯), রাকিব(১৯)। এরা সকলেই নগরীর কাছাকাছি এলাকার বাসিন্দা।

 

 

পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন এ হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুড়ি সুইস গিয়ার নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য তুলে ধরেন। তিনি বলেন, হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত সুইস গিয়ারটি নগরীর চায়না মার্কেট থেকে ক্রয় করে মাহিন। যা নিয়ে ইতিমধ্যে জেলা পুলিশ বিক্রয় নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিলো। বেশ কয়েকটি দোকান থেকে এধরনের ছুড়ি জব্দও করা হয়। সম্প্রতি এধরনের ছুড়িগুলো ময়মনসিংহে অতিমাত্রায় বিভিন্ন কর্মকান্ডে উঠতি বয়সী কিশোরদের কাছে পাওয়া যাচ্ছিলো। সম্প্রতি আটো ছিনতাই করতে গিয়ে একটি কিশোর গ্যাং চালককে ছুরিকাঘাতে হত্যা করে। সেখানেও এ ধরনের ছুড়ি ব্যবহৃত হয়।

 

 

এসপি বলেন, হত্যাকান্ডের তিন দিন আগে মাহিন ছুড়িটি কিনে চকবারার থেকে। দোকানদার ইসলাম উদ্দিন হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুড়ি ও ক্রেতা মাহিনকে সনাক্ত করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। এক্ষেত্রে এধরনের ছুড়ি বিক্রয় নিয়ে আইনি কোন বাধ্যবাদকতা না থাকায় আইনের আওতায় আনা যায়নি বলেও জানা যায়।

সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হুমায়ন কবীর, সদর সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল আমিন, ওসি কোতোয়ালী মোঃ মাহমুদুল ইসলাম, ওসি ডিবি শাহ কামাল আকন্দ, কোতোয়ালী থানার ওসি তদন্ত খন্দকার শাকের আহমেদ, ময়মনসিংহে কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক, অনলাইন মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।

*ময়মনসিংহে আশংকাজনক কিশোর গ্যাং; হাতে সুইস গিয়ার?*

 

 

দাপুনিয়ায় নিহত আটো চালক, কলেজ শিক্ষার্থী শাওন ভট্টাচার্যসহ বেশ কয়েকটি ছিনতাইয়ের ঘটনায় কিশোরদের দলবদ্ধ উপস্থিতি। ব্যবহৃত অত্যাধুনিক অস্ত্র সুইস গিয়ার। যা বাজারে সহজলভ্য। বিষয়টি নিয়ে এখনি ব্যাপক চাঞ্চলের সৃষ্টি হয়েছে ময়মনসিংহে। আশংকাজনকভাবে বাড়ছে উঠতি বয়সী কিশোরদের, বিশেষ করে ১৫ থেকে ১৯ বয়সীদের এ প্রবনতা। যা ভাবিয়ে তুলেছে প্রশাসন ও সচেতন মহলকে।

 

 

সময়ের প্রয়োজনে এ প্রবনতা রোধ করতে পদক্ষেপ প্রয়োজন বলছেন প্রশাসন। এক্ষেত্রে সামাজিক, পারিবারিক, ব্যবসায়ীক মহলে সচেতনতা বৃদ্ধি করা অতি জরুরী হয়ে পড়েছে।

সামাজিক বলয়ে দৃষ্টি রাখা প্রয়োজন আমাদের চারপাশে এ বয়সী কিশোরদের প্রতি। আমরা বেশিরভাগ সময়ই আমাদের আশেপাশের সংগঠিত ছোট বড় ঘটনাগুলো যা দেখে না দেখার মতো করে এড়িয়ে যাই। যা একটু দায়িত্বশীলতার চোখে দেখলে হয়তোবা বড় কোন দুর্ঘটনা রোধ হতে পারে। কোথাও এ বয়সী কিশোরদের কোন প্রকার উত্তেজনা বা বিপদগামী গতিবিধি দেখলেও তা আমরা বাইপাস করে চলি ঝামেলা মনে করে। এখান থেকে বেড়িয়ে আসতে হবে আমাদের। শাওন হত্যাকান্ড এমনটি শিক্ষা দেয় আমাদের। যে মন্ডপে শাওনরা আনন্দ উল্লাস করছিলো সেখানে গত তিন দিন ধরে তিনটি কিশোর গ্রুপের মাঝে উত্তজনা চলছিলো। যারা কেউই সে মন্ডপ এরিয়ার বাসিন্দা ছিলো না, যা সেখানকার সকলেই এড়িয়ে গিয়েছে।

 

 

পারিবারিকভাবে এ বয়সী কিশোরদের চলাফেরা, বন্ধমহল সম্পর্কে অভিভাবকদের সচেতনতা বৃদ্ধি প্রয়োজন। সব পরিবারের স্বজনরা এটি মানতে নারাজ থাকেন তার সন্তান কোন অনৈতিক কাজ করতে পারেন না। কিন্তু বয়স এবং সংস্পর্শ এ বয়সী কিশোরদের নিজের অজান্তের অপরাধে জড়িয়ে ফেলে। এটিও বর্তমান বাস্তবতা। সে দিক থেকে আমরা কেউই দায় এড়িয়ে যেতে পারি না বা শতভাগ নিশ্চিত নয় আমাদের সন্তানরা বিদগামী হবে না।

 

 

ব্যবসায়ীদের সমাজ, পরিবার, প্রজন্ম বিধ্বংসী মুনাফা থেকে বেড়িয়ে আসতে হবে। সমাজ, পরিবার, প্রজন্ম ক্ষতিগ্রস্থ হয় এমন পন্য নিষিদ্ধ না হলেও বিক্রয় করা থেকে বিরত থাকা এটি ব্যবসায়ীক দায়বদ্ধতা সচেতনভাবেই হওয়া উচিত। সুইস গিয়ার ছুড়ি ক্রয় বিক্রয় বন্ধে ব্যবসায়ীদের ঐক্যমত প্রয়োজন। কারণ এটির ব্যবহার আজ ঝুকির মুখে ফেলেছে আমাদের সমাজকে। এতে আক্রান্ত হচ্ছে আমার আপনার আমাদের পরিবার। আমাদের সন্তানরা বিপদগামী হচ্ছে প্রতিনিয়ত। একটি হত্যাকান্ড কয়েকটি পরিবারকে সারা জীবনের কান্না, ক্ষতির শিকার করে। যার প্রভাব ফেলে সামাজিক পরিসরে।

Print Friendly, PDF & Email

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» আগামীকাল ময়মনসিংহ মেতে উঠবে স্বাধীনতা কনসার্টে

» ভাষা শহীদদের প্রতি সংসদ সদস্য মোহিত উর রহমান শান্তর শ্রদ্ধাঞ্জলী

» ১৪৭ বেকার তরুণ তরুণীকে চাকুরির প্রস্তুতি কর্মশালা করালেন এমপি মোহিত উর রহমান শান্ত

» হালুয়াঘাট-ধোবাউড়ায় ৯ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ বৃদ্ধি ; কৃষি সেচে গুরুত্ব এমপির

» ময়মনসিংহ সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আলোচনায় আবু সাঈদ

» সংবর্ধনা বাতিল করে শীতার্তদের মাঝে এমপি মোহিত উর রহমানের কম্বল বিতরণ

» ব্রহ্মপুত্রে নৌকায় চড়ে অনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করলেন মোহিত উর রহমান শান্ত

» ময়মনসিংহে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে উল্লাসভরে ফুলেল শুভেচ্ছায় সমাবেশ

» লেঃ কর্ণেল (অবঃ)নজরুল ইসলামের হস্তক্ষেপে দীর্ঘদিনের জমি সংক্রান্ত বিরোধের অবসান

» ময়মনসিংহ-৪ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন মোহিত উর রহমান শান্ত

» আবারও জাপাকে দিলে জনগনের আস্থা হারাবে আওয়ামী লীগ

» ময়মনসিংহ-৪ আসনে মনোনয়ন কিনেছেন মহানগর সাধারণ সম্পাদক মোহিত উর রহমান শান্ত

» জনসভায় জনসমুদ্র ; সদরের প্রত্যাশা মোহিত উর রহমান শান্ত

» সংবিধান মেনে নির্বাচনে আসেন, আমরাও আসবো-বিএনপিকে মোহিত উর রহমান শান্ত

» প্রতীকী অটোরিকশা চালিয়ে অবরোধের বিরুদ্ধে মোহিত উর রহমান শান্তর প্রতিবাদ

আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

২২ সি কে ঘোষ রোড, ময়মনসিংহ
বার্তা কক্ষ : ০১৭৩৬ ৫১৪ ৮৭২
ইমেইল : dailyjonomot@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার দৈনিক জনমত .কম

কারিগরি সহযোগিতায় BDiTZone.com

,

basic-bank

কিশোর গ্রুপ উন্মুক্ততায় শাওন হত্যাকান্ড; রহস্য উন্মোচন, গ্রেফতার ৭

*ময়মনসিংহে আশংকাজনক কিশোর গ্যাং; হাতে সুইস গিয়ার?*

 

বিল্লাল হোসেন প্রান্তঃ
ময়মনসিংহে চাঞ্চল্যকর শাওন ভট্টাচার্য হত্যাকান্ডের রহস্য বা নেপথ্যের ঘটনা উন্মোচন করেছে পুলিশ। পূজা মন্ডপে উঠতি বয়সী কিশোরদের মদ্যপ অবস্থায় নাচানাচি ও বাকবিতণ্ডার জেরে এ হত্যাকান্ড সংগঠিত হয় বলে জানিয়ে পুলিশ। হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত ৭ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

 

 

৮ অক্টোবর ময়মনসিংহ নগরীর গোলপুকুরপাড় পূজা মন্ডপে কলেজ শিক্ষার্থী শাওনের বুকে ধারালো ছুড়ির আঘাতে মৃত্যু হয়। সে ময়মনসিংহ কমার্স কলেজের ২য় বর্ষের ছাত্র ছিলো।

ঘটনার একদিন পর ১০ অক্টোবর হত্যাকান্ডের পুরো দিক উল্লেখ করে সাংবাদিক সম্মেলন করেছে জেলা পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন। তিনি বলেন, হত্যার সাথে জড়িতরা সবাই কিশোর। বয়স ১৮ থেকে ১৯ এর মধ্যে। নগরীর বিভিন্ন এলাকায় বসবাসকারী এই কিশোররা একে অপরের সাথে পরিচিত। তবে তাদের মধ্যে তিনটি গ্রুপে ভাগ ছিলো।

 

 

এসপি বলেন, হত্যাকান্ডের সময় এরা সবাই মধ্যপ ছিলো। প্রতিমা বিসর্জনের আগ মুহূর্তে বিকট সাউন্ডে গান ছেড়ে নাচানাচি করে। এক সময় সেখানে থাকা আবির গ্রুপের সাথে মাহিন গ্রুপের ধাক্কাধাক্কি হয়। মূহুর্তেই মুন্না গ্রুপ, মাহিন গ্রুপ ও আবির গ্রুপের মধ্যে ত্রিমুখি মারপিট শুরু হয়। ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে মাহিনের পকেট থেকে বের করা সুইজ গিয়ার বের করে প্রথমে আবির ও পরে শাওনের বুকে আঘাত করে। এতে আবির আহত হয়, শাওন মৃত্যুবরণ করে।

 

 

 

ঘটনার খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে আসেন জেলা পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন, কোতোয়ালী ওসি মাহমুদুল ইসলাম, ওসি ডিবি শাহ কামাল আকন্দ। ওই সময়ই ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে জিগ্যাসাবাদের জন্য চারজনকে আটক করে পুলিশ। পরের দিন হত্যাকান্ডের মূল হোতা মাহিন আদালতে ১৬৪ ধরায় স্বীকারক্তিমূলক জবানবন্দী দেয়। এ ঘটনায় নিহত শাওন ভট্টাচার্যের বাবা শুভাশিষ ভট্টাচার্য কোতোয়ালী মডেল থানায় ৯ জনের নাম উল্লেখ করে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

হত্যাকান্ডে জড়িত এজাহার নামিয় গ্রেফতারকৃত ৭ আসামিরা হলেন, মাহফুজুল ইসলাম মাহিন (১৮), আকাশ চন্দ দে(১৫), সারোয়ার উদ্দিন হৃদয় (১৮), ফারদিন(১৯), সাজ্জাদ(১৯), মুন্না(১৯), রাকিব(১৯)। এরা সকলেই নগরীর কাছাকাছি এলাকার বাসিন্দা।

 

 

পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন এ হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুড়ি সুইস গিয়ার নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য তুলে ধরেন। তিনি বলেন, হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত সুইস গিয়ারটি নগরীর চায়না মার্কেট থেকে ক্রয় করে মাহিন। যা নিয়ে ইতিমধ্যে জেলা পুলিশ বিক্রয় নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিলো। বেশ কয়েকটি দোকান থেকে এধরনের ছুড়ি জব্দও করা হয়। সম্প্রতি এধরনের ছুড়িগুলো ময়মনসিংহে অতিমাত্রায় বিভিন্ন কর্মকান্ডে উঠতি বয়সী কিশোরদের কাছে পাওয়া যাচ্ছিলো। সম্প্রতি আটো ছিনতাই করতে গিয়ে একটি কিশোর গ্যাং চালককে ছুরিকাঘাতে হত্যা করে। সেখানেও এ ধরনের ছুড়ি ব্যবহৃত হয়।

 

 

এসপি বলেন, হত্যাকান্ডের তিন দিন আগে মাহিন ছুড়িটি কিনে চকবারার থেকে। দোকানদার ইসলাম উদ্দিন হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুড়ি ও ক্রেতা মাহিনকে সনাক্ত করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। এক্ষেত্রে এধরনের ছুড়ি বিক্রয় নিয়ে আইনি কোন বাধ্যবাদকতা না থাকায় আইনের আওতায় আনা যায়নি বলেও জানা যায়।

সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হুমায়ন কবীর, সদর সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল আমিন, ওসি কোতোয়ালী মোঃ মাহমুদুল ইসলাম, ওসি ডিবি শাহ কামাল আকন্দ, কোতোয়ালী থানার ওসি তদন্ত খন্দকার শাকের আহমেদ, ময়মনসিংহে কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক, অনলাইন মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।

*ময়মনসিংহে আশংকাজনক কিশোর গ্যাং; হাতে সুইস গিয়ার?*

 

 

দাপুনিয়ায় নিহত আটো চালক, কলেজ শিক্ষার্থী শাওন ভট্টাচার্যসহ বেশ কয়েকটি ছিনতাইয়ের ঘটনায় কিশোরদের দলবদ্ধ উপস্থিতি। ব্যবহৃত অত্যাধুনিক অস্ত্র সুইস গিয়ার। যা বাজারে সহজলভ্য। বিষয়টি নিয়ে এখনি ব্যাপক চাঞ্চলের সৃষ্টি হয়েছে ময়মনসিংহে। আশংকাজনকভাবে বাড়ছে উঠতি বয়সী কিশোরদের, বিশেষ করে ১৫ থেকে ১৯ বয়সীদের এ প্রবনতা। যা ভাবিয়ে তুলেছে প্রশাসন ও সচেতন মহলকে।

 

 

সময়ের প্রয়োজনে এ প্রবনতা রোধ করতে পদক্ষেপ প্রয়োজন বলছেন প্রশাসন। এক্ষেত্রে সামাজিক, পারিবারিক, ব্যবসায়ীক মহলে সচেতনতা বৃদ্ধি করা অতি জরুরী হয়ে পড়েছে।

সামাজিক বলয়ে দৃষ্টি রাখা প্রয়োজন আমাদের চারপাশে এ বয়সী কিশোরদের প্রতি। আমরা বেশিরভাগ সময়ই আমাদের আশেপাশের সংগঠিত ছোট বড় ঘটনাগুলো যা দেখে না দেখার মতো করে এড়িয়ে যাই। যা একটু দায়িত্বশীলতার চোখে দেখলে হয়তোবা বড় কোন দুর্ঘটনা রোধ হতে পারে। কোথাও এ বয়সী কিশোরদের কোন প্রকার উত্তেজনা বা বিপদগামী গতিবিধি দেখলেও তা আমরা বাইপাস করে চলি ঝামেলা মনে করে। এখান থেকে বেড়িয়ে আসতে হবে আমাদের। শাওন হত্যাকান্ড এমনটি শিক্ষা দেয় আমাদের। যে মন্ডপে শাওনরা আনন্দ উল্লাস করছিলো সেখানে গত তিন দিন ধরে তিনটি কিশোর গ্রুপের মাঝে উত্তজনা চলছিলো। যারা কেউই সে মন্ডপ এরিয়ার বাসিন্দা ছিলো না, যা সেখানকার সকলেই এড়িয়ে গিয়েছে।

 

 

পারিবারিকভাবে এ বয়সী কিশোরদের চলাফেরা, বন্ধমহল সম্পর্কে অভিভাবকদের সচেতনতা বৃদ্ধি প্রয়োজন। সব পরিবারের স্বজনরা এটি মানতে নারাজ থাকেন তার সন্তান কোন অনৈতিক কাজ করতে পারেন না। কিন্তু বয়স এবং সংস্পর্শ এ বয়সী কিশোরদের নিজের অজান্তের অপরাধে জড়িয়ে ফেলে। এটিও বর্তমান বাস্তবতা। সে দিক থেকে আমরা কেউই দায় এড়িয়ে যেতে পারি না বা শতভাগ নিশ্চিত নয় আমাদের সন্তানরা বিদগামী হবে না।

 

 

ব্যবসায়ীদের সমাজ, পরিবার, প্রজন্ম বিধ্বংসী মুনাফা থেকে বেড়িয়ে আসতে হবে। সমাজ, পরিবার, প্রজন্ম ক্ষতিগ্রস্থ হয় এমন পন্য নিষিদ্ধ না হলেও বিক্রয় করা থেকে বিরত থাকা এটি ব্যবসায়ীক দায়বদ্ধতা সচেতনভাবেই হওয়া উচিত। সুইস গিয়ার ছুড়ি ক্রয় বিক্রয় বন্ধে ব্যবসায়ীদের ঐক্যমত প্রয়োজন। কারণ এটির ব্যবহার আজ ঝুকির মুখে ফেলেছে আমাদের সমাজকে। এতে আক্রান্ত হচ্ছে আমার আপনার আমাদের পরিবার। আমাদের সন্তানরা বিপদগামী হচ্ছে প্রতিনিয়ত। একটি হত্যাকান্ড কয়েকটি পরিবারকে সারা জীবনের কান্না, ক্ষতির শিকার করে। যার প্রভাব ফেলে সামাজিক পরিসরে।

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ খবর



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

২২ সি কে ঘোষ রোড, ময়মনসিংহ
বার্তা কক্ষ : ০১৭৩৬ ৫১৪ ৮৭২
ইমেইল : dailyjonomot@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার দৈনিক জনমত .কম

কারিগরি সহযোগিতায় BDiTZone.com