রাত ২:৪৬ | বুধবার | ১৭ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মমেক হাসপাতালে ক্যাথল্যাব স্থাপন, কার্যক্রম শুরু ফেব্রুয়ারিতে

বিল্লাল হোসেন প্রান্তঃ

হার্টের রোগীদের জন্য সুসংবাদ। আর নয় ঢাকায়। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেই হবে এনজিওগ্রাম পরীক্ষা। হার্টের ব্লক হয়ে যাওয়া রক্তনালি বেলুন ও রিং (স্টেন্ট) এর মাধ্যমে সচল করা যাবে। সরকার নির্ধারিত মূল্যে গরীব রোগীরাও পাবে হার্টের চিকিৎসা।

 

 

এসব কার্যক্রম করতে যে মেশিনের প্রয়োজন তাকে ক্যাথল্যাব বলে। যেটি ইতিমধ্যেই স্থাপন করা হয়ে গেছে। কার্যক্রম শুরু হবে ফেব্রুয়ারি মাসে। স্থাপনের ৫৭ বছর পর চিকিৎসা সেবায় আরও একধাপ এগিয়ে গেলো ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। সুসংবাদটি সামাজিক মাধ্যমে জানিয়েছেন ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাসির উদ্দিন আহমেদ।

 

 

২০ জানুয়ারি রাত সাড়ে এগারোটায় নিজের ফেইসবুক আইডিতে ক্যাথল্যাব স্থাপনের খবরটি প্রকাশ করেন হাসপাতালের পরিচালক। স্ট্যাটাসটি হুবহু নিচে তুলে ধরা হলোঃ-

 

 

#ক্যাথল্যাব_কি?
এই মেশিন দিয়ে হৃদরোগ বিষেশজ্ঞগন হার্টের নিজস্ব রক্তনালির রক্তচলাচল কেমন আছে তা সরাসরি দেখতে পারেন, এবং প্রয়োজন অনুযায়ী বন্ধ রক্তনালির রক্তচলাচল বেলুন ও রিং (স্টেন্ট) এর মাধ্যমে সচল করে দিতে পারেন। এর মাধ্যমে হার্ট এটাকের রোগীগন পুনরায় স্বাভাবিক জীবন ফিরে পান।

 

 

#এনজিওগ্রাম_কি?
হার্টের নিজস্ব রক্তনালির রক্তচলাচল কি অবস্থায় আছে সেটি দেখার পদ্ধতির নাম এনজিওগ্রাম।ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ক্যাথল্যাবে এটি করা হবে। এটা হার্টের রক্ত নালীর একটি পরীক্ষা। চিকিৎসা নয়।

 

 

★এনজিওগ্রাম করলেই রিং বা স্টেন্ট পরাতে হয় না, তবে রক্তনালির ভেতরে রক্তচলাচল বেশী কমে গেলে বা বন্ধ হয়ে গেলে অবশ্যই বেলুন এর মাধ্যমে রিং বা কার্ডিয়াক স্টেন্ট স্থাপন করতে হবে।
এই রিং বা স্টেন্ট পরানোর পদ্ধতিকেই এনজিওপ্লাস্টি বলে। এটা চিকিৎসা।
সরকারি হাসপাতালে সরকার নির্ধারিত এনজিওগ্রামের ফি রয়েছে।
এছাড়া এনজিওপ্লাস্টির জন্য অর্থাৎ রিং বা স্টেন্ট পরানোর জন্য প্রয়োজনীয় বেলুন, স্টেন্ট, ক্যাথেটার সহ অন্যান্য উপকরণ এর সরকার নির্ধারিত মুল্য রয়েছে।
এগুলো সংশ্লিষ্ট রোগীকে বহন করতে হবে। মুল্যতালিকা কার্ডিওলজি বিভাগে দেয়া থাকবে।

 

 

★এছাড়াও টেম্পোরারি পেসমেকার, পার্মানেন্ট পেসমেকার স্থাপন করার কাজ ও চলবে সরকারি মুল্যেই।

 

 

★গরীব রোগীদের হতাশ হবার কারন নেই।যথাযথ প্রমান সাপেক্ষে ফ্রী এনজিওগ্রাম এবং প্রয়োজনে ফ্রী স্টেন্ট পরানোর ব্যবস্থা করা হবে। যতদিন আল্লাহ আমাকে তৌফিক দেন।

 

 

★উল্লেখ্য রিং বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন মাপের রয়েছে, এবং এগুলোর দাম সরকারি ওসুধ প্রশাসন থেকে নির্ধারণ করা রয়েছে।
সকল ব্যায় সরকারি রশিদ এর মাধ্যমে হবে।

 

 

★আপনাদের হাসপাতাল।এর সকল সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করা হয়েছে। আমি চলে গেলেও এ হাসপাতালের স্বাভাবিক গতির জন্য আপনাদের সবার দায়িত্ব আছে; যাতে হাসপাতাল দুর্বৃত্ত দের আস্তানা না হয়। আল্লাহর সুবহানাল্লাহ এর দয়ায় তার একজন অতি নগন্য দাস হিসেবে আমি ৪ বছর ৩ মাস নিরলস ভাবে আপনাদের সহযোগিতায় যতটা সম্ভব করেছি। সব পারিনি। আপনারা হাসপাতাল কে আরো এগিয়ে নিয়ে যাবেন। প্রশংসা শুধুমাত্র আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালার প্রাপ্য

বিনীত
পরিচালক
ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

Print Friendly, PDF & Email

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» আগামীকাল ময়মনসিংহ মেতে উঠবে স্বাধীনতা কনসার্টে

» ভাষা শহীদদের প্রতি সংসদ সদস্য মোহিত উর রহমান শান্তর শ্রদ্ধাঞ্জলী

» ১৪৭ বেকার তরুণ তরুণীকে চাকুরির প্রস্তুতি কর্মশালা করালেন এমপি মোহিত উর রহমান শান্ত

» হালুয়াঘাট-ধোবাউড়ায় ৯ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ বৃদ্ধি ; কৃষি সেচে গুরুত্ব এমপির

» ময়মনসিংহ সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আলোচনায় আবু সাঈদ

» সংবর্ধনা বাতিল করে শীতার্তদের মাঝে এমপি মোহিত উর রহমানের কম্বল বিতরণ

» ব্রহ্মপুত্রে নৌকায় চড়ে অনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করলেন মোহিত উর রহমান শান্ত

» ময়মনসিংহে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে উল্লাসভরে ফুলেল শুভেচ্ছায় সমাবেশ

» লেঃ কর্ণেল (অবঃ)নজরুল ইসলামের হস্তক্ষেপে দীর্ঘদিনের জমি সংক্রান্ত বিরোধের অবসান

» ময়মনসিংহ-৪ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন মোহিত উর রহমান শান্ত

» আবারও জাপাকে দিলে জনগনের আস্থা হারাবে আওয়ামী লীগ

» ময়মনসিংহ-৪ আসনে মনোনয়ন কিনেছেন মহানগর সাধারণ সম্পাদক মোহিত উর রহমান শান্ত

» জনসভায় জনসমুদ্র ; সদরের প্রত্যাশা মোহিত উর রহমান শান্ত

» সংবিধান মেনে নির্বাচনে আসেন, আমরাও আসবো-বিএনপিকে মোহিত উর রহমান শান্ত

» প্রতীকী অটোরিকশা চালিয়ে অবরোধের বিরুদ্ধে মোহিত উর রহমান শান্তর প্রতিবাদ

আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

২২ সি কে ঘোষ রোড, ময়মনসিংহ
বার্তা কক্ষ : ০১৭৩৬ ৫১৪ ৮৭২
ইমেইল : dailyjonomot@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার দৈনিক জনমত .কম

কারিগরি সহযোগিতায় BDiTZone.com

,

basic-bank

মমেক হাসপাতালে ক্যাথল্যাব স্থাপন, কার্যক্রম শুরু ফেব্রুয়ারিতে

বিল্লাল হোসেন প্রান্তঃ

হার্টের রোগীদের জন্য সুসংবাদ। আর নয় ঢাকায়। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেই হবে এনজিওগ্রাম পরীক্ষা। হার্টের ব্লক হয়ে যাওয়া রক্তনালি বেলুন ও রিং (স্টেন্ট) এর মাধ্যমে সচল করা যাবে। সরকার নির্ধারিত মূল্যে গরীব রোগীরাও পাবে হার্টের চিকিৎসা।

 

 

এসব কার্যক্রম করতে যে মেশিনের প্রয়োজন তাকে ক্যাথল্যাব বলে। যেটি ইতিমধ্যেই স্থাপন করা হয়ে গেছে। কার্যক্রম শুরু হবে ফেব্রুয়ারি মাসে। স্থাপনের ৫৭ বছর পর চিকিৎসা সেবায় আরও একধাপ এগিয়ে গেলো ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। সুসংবাদটি সামাজিক মাধ্যমে জানিয়েছেন ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাসির উদ্দিন আহমেদ।

 

 

২০ জানুয়ারি রাত সাড়ে এগারোটায় নিজের ফেইসবুক আইডিতে ক্যাথল্যাব স্থাপনের খবরটি প্রকাশ করেন হাসপাতালের পরিচালক। স্ট্যাটাসটি হুবহু নিচে তুলে ধরা হলোঃ-

 

 

#ক্যাথল্যাব_কি?
এই মেশিন দিয়ে হৃদরোগ বিষেশজ্ঞগন হার্টের নিজস্ব রক্তনালির রক্তচলাচল কেমন আছে তা সরাসরি দেখতে পারেন, এবং প্রয়োজন অনুযায়ী বন্ধ রক্তনালির রক্তচলাচল বেলুন ও রিং (স্টেন্ট) এর মাধ্যমে সচল করে দিতে পারেন। এর মাধ্যমে হার্ট এটাকের রোগীগন পুনরায় স্বাভাবিক জীবন ফিরে পান।

 

 

#এনজিওগ্রাম_কি?
হার্টের নিজস্ব রক্তনালির রক্তচলাচল কি অবস্থায় আছে সেটি দেখার পদ্ধতির নাম এনজিওগ্রাম।ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ক্যাথল্যাবে এটি করা হবে। এটা হার্টের রক্ত নালীর একটি পরীক্ষা। চিকিৎসা নয়।

 

 

★এনজিওগ্রাম করলেই রিং বা স্টেন্ট পরাতে হয় না, তবে রক্তনালির ভেতরে রক্তচলাচল বেশী কমে গেলে বা বন্ধ হয়ে গেলে অবশ্যই বেলুন এর মাধ্যমে রিং বা কার্ডিয়াক স্টেন্ট স্থাপন করতে হবে।
এই রিং বা স্টেন্ট পরানোর পদ্ধতিকেই এনজিওপ্লাস্টি বলে। এটা চিকিৎসা।
সরকারি হাসপাতালে সরকার নির্ধারিত এনজিওগ্রামের ফি রয়েছে।
এছাড়া এনজিওপ্লাস্টির জন্য অর্থাৎ রিং বা স্টেন্ট পরানোর জন্য প্রয়োজনীয় বেলুন, স্টেন্ট, ক্যাথেটার সহ অন্যান্য উপকরণ এর সরকার নির্ধারিত মুল্য রয়েছে।
এগুলো সংশ্লিষ্ট রোগীকে বহন করতে হবে। মুল্যতালিকা কার্ডিওলজি বিভাগে দেয়া থাকবে।

 

 

★এছাড়াও টেম্পোরারি পেসমেকার, পার্মানেন্ট পেসমেকার স্থাপন করার কাজ ও চলবে সরকারি মুল্যেই।

 

 

★গরীব রোগীদের হতাশ হবার কারন নেই।যথাযথ প্রমান সাপেক্ষে ফ্রী এনজিওগ্রাম এবং প্রয়োজনে ফ্রী স্টেন্ট পরানোর ব্যবস্থা করা হবে। যতদিন আল্লাহ আমাকে তৌফিক দেন।

 

 

★উল্লেখ্য রিং বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন মাপের রয়েছে, এবং এগুলোর দাম সরকারি ওসুধ প্রশাসন থেকে নির্ধারণ করা রয়েছে।
সকল ব্যায় সরকারি রশিদ এর মাধ্যমে হবে।

 

 

★আপনাদের হাসপাতাল।এর সকল সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করা হয়েছে। আমি চলে গেলেও এ হাসপাতালের স্বাভাবিক গতির জন্য আপনাদের সবার দায়িত্ব আছে; যাতে হাসপাতাল দুর্বৃত্ত দের আস্তানা না হয়। আল্লাহর সুবহানাল্লাহ এর দয়ায় তার একজন অতি নগন্য দাস হিসেবে আমি ৪ বছর ৩ মাস নিরলস ভাবে আপনাদের সহযোগিতায় যতটা সম্ভব করেছি। সব পারিনি। আপনারা হাসপাতাল কে আরো এগিয়ে নিয়ে যাবেন। প্রশংসা শুধুমাত্র আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালার প্রাপ্য

বিনীত
পরিচালক
ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ খবর



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

২২ সি কে ঘোষ রোড, ময়মনসিংহ
বার্তা কক্ষ : ০১৭৩৬ ৫১৪ ৮৭২
ইমেইল : dailyjonomot@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার দৈনিক জনমত .কম

কারিগরি সহযোগিতায় BDiTZone.com