বিকাল ৫:৪৩ | মঙ্গলবার | ১৮ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ময়মনসিংহে রক্ষা পাচ্ছেনা মাস্ক হকাররাও; তোলাবাজদের দৌরাত্ম অপ্রতিরোধ্য!

বিল্লাল হোসেন প্রান্তঃ

“মাস্ক নেন মাস্ক। মরণব্যাধী করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে মাস্ক ব্যবহার করুন।” যানযট ঠেলে এভাবেই চলন্ত মাস্ক বিহীন মানুষের হাতে মাস্ক তুলে দিতে ছুটে যায় মাস্ক হকাররা। পেটের তাগিদে হাতে কিংবা জুড়িতে করে ময়মনসিংহ নগরীর সড়কে মাস্কসহ বিভিন্ন সুরক্ষা সামগ্রী ফেরি করে জীবিকা নির্বাহ করছে প্রায় শতাধিক মাস্ক হকার। তাদের দোকান দিয়ে বসার সামর্থ নেই।

 

 

সকাল থেকে রাত অবধি ময়মনসিংহ নগরীর প্রাণকেন্দ্র গাঙ্গিনারপাড় এলাকায় মাস্ক ফেরি করে নিজের ও পরিবারের জীবিকা নির্বাহ করছে ওরা । একইসাথে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে অবদানও রাখছে। সরকার করোনা প্রতিরোধে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক ঘোষনা করেছে। রাজনৈতিক, সামাজিক, প্রশাসনিকভাবে কর্মসূচী ঘোষনা করে মাস্ক বিতরণ করেছেন। এসব কর্মসূচীগুলো প্রতিদিন হয় না। তবে মাস্ক বিক্রেতা হকাররা প্রতিদিন তাদের জীবিকার টানে মাস্ক ফেরি করছে। তারা আছে বলেই অনেক অসচেতন মানুষ মাস্ক সামনে পেয়ে তা কিনে নিচ্ছে। সেদিক থেকে সমাজ সচেতনতায় ভূমিকা রাখছে মাস্ক হকাররা। সেই হকারদের কাছ থেকেও নেয়া হচ্ছে চাঁদা। বিষয়টি সচেতন মহলে ব্যাপক নেতিবাচক ঘটনা বলে প্রতিয়মান হয়েছে। চিহ্নিত চাঁদাবাজদের অতি দ্রুত আইনের আওতায় এনে প্রতিহত করার মন্তব্য এসেছে।

 

 

কথা বলে জানা গেছে, সারাদিন অক্লান্ত পরিশ্রমে ৫০ পিছ মাস্ক বিক্রি করলে মূনাফা দাঁড়ায় ১৫০ টাকা। সেই লাভের অংশ থেকে ফুটপাত চাঁদার নামে স্থানীয় চাঁদাবাজদের হাতেই তুলে দিতে হয় ৫০ টাকা করে। প্রতি ছোট দোকানের জন্য ৫০ টাকা বড় হকারীকে দিনশেষ গুনতে হয় ১০০ টাকা করে। যা “মরার উপর খড়ার ঘা” মনে হলেও উপায় নেই।

 

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক মাস্ক হকার জানান, সারাদিন পরিশ্রম করে সামান্য পুঁজি খাটিয়ে যে টাকা লাভ করি তা দিয়ে সংসার না চলেনা। তার উপর পুলিশের নামে,স্থানীয় কিছু নেতাদের নামে প্রতিদিন নির্ধারিত হারে টাকা দিতে হয়। এক মাস্ক হকার আশে পাশে তাকিয়ে অনেকটা ভয়ে ভয়ে বলছিলো, “ভাই আপনি সাংবাদিক বললে নিউজ করে দিবেন। এরপর জ্বালা পোহাইতে হইবো আমগোর। ওরা জানতে পারলে এইনো বইবার দিতনা। অহনতো কিছু একটা কইরা পেট চালাইতে পারতাছি পরে বেকার হইয়া জামু”।

কারা নেয় এই চাদাঁর টাকা? “আলাপচারিতায় একাধিক নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ফুটপাত হকার উৎপল ও সজিব নামের দুইজনের কথা বলেন। তারা আরও জানান, তোলাবাজরা পুলিশ ও কিছু নেতাকে ম্যানেজের নাম করেই প্রতিদিন এই টাকা তুলে থাকে।” প্রতিদিন গাঙ্গিনারপাড় এলাকায় রাস্তার দুপাশে ছোট বড় মিলিয়ে গড়ে ৩শ ফুটপাত দোকান থেকে প্রায় ২৮ হাজার টাকা চাঁদা তোলা হয় বলে সূত্রে জানায়। তবে শীত মৌসুমে দোকানের সংখ্যা আরও বেশি হয়ে থাকে বলে সূত্রে জানা গেছে।

 

 

তবে এ বিষয়ে গাঙ্গিনারপাড়ে এক জুয়েলারি দোকানের সামনে বসা মাস্ক হকার অঞ্জন টাকা বা চাঁদা দেয়ার বিষয়টি পুরোপুরি অস্বীকার করে এ বিষয়ে কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, আমি দাদার দোকানের (জুয়েলারি) সামনে বসি অন্য কাউকে টাকা দেই না। মেহেদী নামের আরেক তরুণ মাস্ক হকার বলেন, এসব বিষয় নিয়ে কথা বলে আমি বিপদে পড়তে চাই না।

সূত্রে জানা গেছে, ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সুপার মোহাঃ আহমার উজ্জামান ফুটপাতে চাঁদাবাজি বন্ধে কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন। বন্ধ হয়েছে পতিতা পল্লীতে দাদন ব্যবসা ও চোলাই মদের অবৈধ ব্যবসা। আটক হয়েছে বিপুল পরিমানে চোলাই মদ। এসপির কঠোর অবস্থানে পুলিশ এখানে নড়েচড়ে বসেছে। ১ নং ফাঁড়ি ইনচার্জ ইন্সপেক্টর দুলাল আকন্দ এখানে নির্দেশনা অনুযায়ী কঠোর। তবে পুলিশের এ কঠোরতার মাঝেই পুলিশের নামে ফুটপাতে চলছে নিরব চাঁদাবাজি। তোলাবাজদের দৌরাত্ম এখানে অনেকটাই অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে।

 

 

জানা গেছে, পুলিশ প্রশাসনের ফুটপাতে চাঁদাবাজি বন্ধের কঠোর অবস্থানকে অকার্যকর করছে প্রভাবশালী কয়েকজন নেতার ছত্রছায়ায় থাকা গুটি কয়েক তোলাবাজ। যারা প্রকাশ্যে ওই নেতার নাম ভাঙ্গিয়ে নিজের প্রভাব বলয় সৃষ্টি করে নির্বিগ্নে চাঁদাবাজি করছে বলে সূত্র জানায়। নগরীর গাঙ্গিনারপাড় ফুটপাত হকার মুক্ত করার জনদাবি অনেকটাই শিথিল হয়ে পড়ে অসহায় হকারদের মানবিক দাবির কাছে। তবে এর সুযোগে প্রতিদিন হাজার হাজার, মাসে লাখ টাকা লুটে নিচ্ছে চাঁদাবাজরা। যা এখানে একদিন প্রতিদিনের ওপেন সিক্রেট।

Print Friendly, PDF & Email

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» ময়মনসিংহে এমপি শান্ত’র সৌজন্যে অসহায় দুস্থদের মাঝে আল খায়ের ফাউন্ডেশনের মাংস বিতরণ

» ময়মনসিংহ ডিবির অভিযানে অস্ত্র, মাদক, বিস্ফোরকসহ গ্রেফতার দুই

» নাসিরাবাদ কলেজ গর্ভনিং বডির কমিটি বহাল রেখেছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ

» দ্বিতীয় দফায় এমপি মোহিত উর রহমানের ফ্রি চক্ষু সেবা

» প্রয়াত মতিউর রহমানের স্নেহধন্য আবু সাঈদ জনতার ভালোবাসা

» অস্ত্র মামলায় কাউন্সিলর নোমানের ১০ বছর কারাদণ্ড

» আমি বাংলাদেশের সবচাইতে অজনপ্রিয় সাংসদ হবো- মোহিত উর রহমান শান্ত

» ময়মনসিংহ ডিবির অভিযানে ৪ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

» তাপদাহ প্রশমনে ময়মনসিংহ মহানগর যুবলীগের উদ্যোগে পানি-জুস-সেলাইন বিতরণ

» এমপি মোহিত উর রহমানের সহায়তায় ১১০ জনের চোখের ছানি অপারেশন সম্পন্ন

» উপজেলা চেয়ারম্যান পদে আশরাফ-সাঈদ প্রতিদ্বন্দ্বিতার আভাস, ১৪ জন বৈধ ঘোষিত

» আগামীকাল ময়মনসিংহ মেতে উঠবে স্বাধীনতা কনসার্টে

» ভাষা শহীদদের প্রতি সংসদ সদস্য মোহিত উর রহমান শান্তর শ্রদ্ধাঞ্জলী

» ১৪৭ বেকার তরুণ তরুণীকে চাকুরির প্রস্তুতি কর্মশালা করালেন এমপি মোহিত উর রহমান শান্ত

» হালুয়াঘাট-ধোবাউড়ায় ৯ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ বৃদ্ধি ; কৃষি সেচে গুরুত্ব এমপির

আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

২২ সি কে ঘোষ রোড, ময়মনসিংহ
বার্তা কক্ষ : ০১৭৩৬ ৫১৪ ৮৭২
ইমেইল : dailyjonomot@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার দৈনিক জনমত .কম

কারিগরি সহযোগিতায় BDiTZone.com

,

basic-bank

ময়মনসিংহে রক্ষা পাচ্ছেনা মাস্ক হকাররাও; তোলাবাজদের দৌরাত্ম অপ্রতিরোধ্য!

বিল্লাল হোসেন প্রান্তঃ

“মাস্ক নেন মাস্ক। মরণব্যাধী করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে মাস্ক ব্যবহার করুন।” যানযট ঠেলে এভাবেই চলন্ত মাস্ক বিহীন মানুষের হাতে মাস্ক তুলে দিতে ছুটে যায় মাস্ক হকাররা। পেটের তাগিদে হাতে কিংবা জুড়িতে করে ময়মনসিংহ নগরীর সড়কে মাস্কসহ বিভিন্ন সুরক্ষা সামগ্রী ফেরি করে জীবিকা নির্বাহ করছে প্রায় শতাধিক মাস্ক হকার। তাদের দোকান দিয়ে বসার সামর্থ নেই।

 

 

সকাল থেকে রাত অবধি ময়মনসিংহ নগরীর প্রাণকেন্দ্র গাঙ্গিনারপাড় এলাকায় মাস্ক ফেরি করে নিজের ও পরিবারের জীবিকা নির্বাহ করছে ওরা । একইসাথে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে অবদানও রাখছে। সরকার করোনা প্রতিরোধে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক ঘোষনা করেছে। রাজনৈতিক, সামাজিক, প্রশাসনিকভাবে কর্মসূচী ঘোষনা করে মাস্ক বিতরণ করেছেন। এসব কর্মসূচীগুলো প্রতিদিন হয় না। তবে মাস্ক বিক্রেতা হকাররা প্রতিদিন তাদের জীবিকার টানে মাস্ক ফেরি করছে। তারা আছে বলেই অনেক অসচেতন মানুষ মাস্ক সামনে পেয়ে তা কিনে নিচ্ছে। সেদিক থেকে সমাজ সচেতনতায় ভূমিকা রাখছে মাস্ক হকাররা। সেই হকারদের কাছ থেকেও নেয়া হচ্ছে চাঁদা। বিষয়টি সচেতন মহলে ব্যাপক নেতিবাচক ঘটনা বলে প্রতিয়মান হয়েছে। চিহ্নিত চাঁদাবাজদের অতি দ্রুত আইনের আওতায় এনে প্রতিহত করার মন্তব্য এসেছে।

 

 

কথা বলে জানা গেছে, সারাদিন অক্লান্ত পরিশ্রমে ৫০ পিছ মাস্ক বিক্রি করলে মূনাফা দাঁড়ায় ১৫০ টাকা। সেই লাভের অংশ থেকে ফুটপাত চাঁদার নামে স্থানীয় চাঁদাবাজদের হাতেই তুলে দিতে হয় ৫০ টাকা করে। প্রতি ছোট দোকানের জন্য ৫০ টাকা বড় হকারীকে দিনশেষ গুনতে হয় ১০০ টাকা করে। যা “মরার উপর খড়ার ঘা” মনে হলেও উপায় নেই।

 

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক মাস্ক হকার জানান, সারাদিন পরিশ্রম করে সামান্য পুঁজি খাটিয়ে যে টাকা লাভ করি তা দিয়ে সংসার না চলেনা। তার উপর পুলিশের নামে,স্থানীয় কিছু নেতাদের নামে প্রতিদিন নির্ধারিত হারে টাকা দিতে হয়। এক মাস্ক হকার আশে পাশে তাকিয়ে অনেকটা ভয়ে ভয়ে বলছিলো, “ভাই আপনি সাংবাদিক বললে নিউজ করে দিবেন। এরপর জ্বালা পোহাইতে হইবো আমগোর। ওরা জানতে পারলে এইনো বইবার দিতনা। অহনতো কিছু একটা কইরা পেট চালাইতে পারতাছি পরে বেকার হইয়া জামু”।

কারা নেয় এই চাদাঁর টাকা? “আলাপচারিতায় একাধিক নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ফুটপাত হকার উৎপল ও সজিব নামের দুইজনের কথা বলেন। তারা আরও জানান, তোলাবাজরা পুলিশ ও কিছু নেতাকে ম্যানেজের নাম করেই প্রতিদিন এই টাকা তুলে থাকে।” প্রতিদিন গাঙ্গিনারপাড় এলাকায় রাস্তার দুপাশে ছোট বড় মিলিয়ে গড়ে ৩শ ফুটপাত দোকান থেকে প্রায় ২৮ হাজার টাকা চাঁদা তোলা হয় বলে সূত্রে জানায়। তবে শীত মৌসুমে দোকানের সংখ্যা আরও বেশি হয়ে থাকে বলে সূত্রে জানা গেছে।

 

 

তবে এ বিষয়ে গাঙ্গিনারপাড়ে এক জুয়েলারি দোকানের সামনে বসা মাস্ক হকার অঞ্জন টাকা বা চাঁদা দেয়ার বিষয়টি পুরোপুরি অস্বীকার করে এ বিষয়ে কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, আমি দাদার দোকানের (জুয়েলারি) সামনে বসি অন্য কাউকে টাকা দেই না। মেহেদী নামের আরেক তরুণ মাস্ক হকার বলেন, এসব বিষয় নিয়ে কথা বলে আমি বিপদে পড়তে চাই না।

সূত্রে জানা গেছে, ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সুপার মোহাঃ আহমার উজ্জামান ফুটপাতে চাঁদাবাজি বন্ধে কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন। বন্ধ হয়েছে পতিতা পল্লীতে দাদন ব্যবসা ও চোলাই মদের অবৈধ ব্যবসা। আটক হয়েছে বিপুল পরিমানে চোলাই মদ। এসপির কঠোর অবস্থানে পুলিশ এখানে নড়েচড়ে বসেছে। ১ নং ফাঁড়ি ইনচার্জ ইন্সপেক্টর দুলাল আকন্দ এখানে নির্দেশনা অনুযায়ী কঠোর। তবে পুলিশের এ কঠোরতার মাঝেই পুলিশের নামে ফুটপাতে চলছে নিরব চাঁদাবাজি। তোলাবাজদের দৌরাত্ম এখানে অনেকটাই অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে।

 

 

জানা গেছে, পুলিশ প্রশাসনের ফুটপাতে চাঁদাবাজি বন্ধের কঠোর অবস্থানকে অকার্যকর করছে প্রভাবশালী কয়েকজন নেতার ছত্রছায়ায় থাকা গুটি কয়েক তোলাবাজ। যারা প্রকাশ্যে ওই নেতার নাম ভাঙ্গিয়ে নিজের প্রভাব বলয় সৃষ্টি করে নির্বিগ্নে চাঁদাবাজি করছে বলে সূত্র জানায়। নগরীর গাঙ্গিনারপাড় ফুটপাত হকার মুক্ত করার জনদাবি অনেকটাই শিথিল হয়ে পড়ে অসহায় হকারদের মানবিক দাবির কাছে। তবে এর সুযোগে প্রতিদিন হাজার হাজার, মাসে লাখ টাকা লুটে নিচ্ছে চাঁদাবাজরা। যা এখানে একদিন প্রতিদিনের ওপেন সিক্রেট।

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ খবর



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

২২ সি কে ঘোষ রোড, ময়মনসিংহ
বার্তা কক্ষ : ০১৭৩৬ ৫১৪ ৮৭২
ইমেইল : dailyjonomot@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার দৈনিক জনমত .কম

কারিগরি সহযোগিতায় BDiTZone.com