বিকাল ৫:৫৭ | মঙ্গলবার | ১৮ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শামীম এন্টারপ্রাইজের জুটমিলে গণধর্ষণ; দুই আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

বিল্লাল হোসেন প্রান্তঃ আপডেটঃ

ময়মনসিংহের চরাঞ্চলে শামীম এন্টারপ্রাইজের মালিকানাধীন জুটমিলের নারী শ্রমিক (তাতী) কে গণধর্ষণ মামলার প্রধান দুই আসামি আদালতে (১৬৪)স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে।

 

 

গণধর্ষণ মামলায় গ্রেফতারকৃত আসামি আরিফ ২৩ জুলাই স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। তার দেয়া তথ্যমূলে অজ্ঞাত চার আসামির একজন সোহাগকে গ্রেফতার করে কোতোয়ালী থানা পুলিশ। ২৮ জুলাই রবিবার সোহাগ বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারা মোতাবেক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। তবে এ মামলার প্রধান আাসমি ইসমাঈল (২৫) কে এখনও পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি।

 

 

মামলার বিবরণে জানা যায়, ধর্ষিতা বয়ড়া ছালাকান্দা এলাকার তিন সন্তানের জননী। সে তিন বছর যাবৎ ময়মনসিংহের চরাঞ্চলে শম্ভুগঞ্জ শামীম এন্টারপ্রাইজের মালিকানাধিন জুট মিলে তাতী শ্রমিক হিসাবে কর্মরত। কর্মের সুবাদে তার সাথে পরিচয় হয় জুট মিলের তাতী ইসমাঈলের সাথে।

 

 

ঘটনার দিন ২০ জুন রাত ৮ টার দিকে ইসমাঈল ধর্ষিতাকে কথা আছে বলে জুট মিলের ভেতরে ১ম শ্রেনীর কোয়ার্টারের ছাদে নিয়ে যায়। সেখানে ধর্ষিতার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে ইসমাঈলের পরিকল্পনা অনুযায়ী আগে থেকে উৎপেতে থাকা তার চার বন্ধু আসে। ধর্ষিতাকে একটি পরিত্যক্ত পানির ট্যাংকির ভিতরে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এবং ধর্ষিতার মোবাইল,স্বর্ণের চেইন,নগদ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

 

 

ঘটনার ৫ দিন পর ২৬ জুন ইসমাঈলের বোন জামাই মামলার দ্বিতীয় আসামি আরিফ(২৫) আপোষ মিমাংশার কথা বলে ধড়ষিতাকে তাদের বাড়িতে নিয়ে একমাস আটকে রাখে। এবং প্রতিনিয়ত বিভিন্ন হুমকি দিতে থাকে কোন মামলা মোকদ্দমা না করার জন্য। পরে ১৭ জুলাই ধর্ষিতাকে তার স্বামীর কাছে বুঝিয়ে দেয়ার কথা বলে শম্ভুগঞ্জ চামড়া বাজার মাদ্রাসার কাছে ছেড়ে দিয়ে বিবাদীরা পালিয়ে যায়।

 

 

এ ঘটনায় ধর্ষিতা সমালোচনার মুখে তার স্বামী ও আত্মীয় স্বজনের পরামর্শে ২৩ জুলাই কোতোয়ালী থানায় নিজে বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। মামলায় ইসমাঈল ও আরিফ এর নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাত চারজনকে আসামি করা হয়।

 

 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি তদন্ত খন্দকার শাকের আহমেদ জানান, জুটমিলে গণধর্ষণ মামলার দুই আসামিকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। আজ (২৮ জুলাই) সোহাগ নামের এজাহার নামিয় আসামি বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারামূলে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। তিনি বলেন, বাকি আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশি পক্রিয়া চলছে। আইনের হাত থেকে কেউ ছাড় পাবেনা।

Print Friendly, PDF & Email

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» ময়মনসিংহে এমপি শান্ত’র সৌজন্যে অসহায় দুস্থদের মাঝে আল খায়ের ফাউন্ডেশনের মাংস বিতরণ

» ময়মনসিংহ ডিবির অভিযানে অস্ত্র, মাদক, বিস্ফোরকসহ গ্রেফতার দুই

» নাসিরাবাদ কলেজ গর্ভনিং বডির কমিটি বহাল রেখেছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ

» দ্বিতীয় দফায় এমপি মোহিত উর রহমানের ফ্রি চক্ষু সেবা

» প্রয়াত মতিউর রহমানের স্নেহধন্য আবু সাঈদ জনতার ভালোবাসা

» অস্ত্র মামলায় কাউন্সিলর নোমানের ১০ বছর কারাদণ্ড

» আমি বাংলাদেশের সবচাইতে অজনপ্রিয় সাংসদ হবো- মোহিত উর রহমান শান্ত

» ময়মনসিংহ ডিবির অভিযানে ৪ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

» তাপদাহ প্রশমনে ময়মনসিংহ মহানগর যুবলীগের উদ্যোগে পানি-জুস-সেলাইন বিতরণ

» এমপি মোহিত উর রহমানের সহায়তায় ১১০ জনের চোখের ছানি অপারেশন সম্পন্ন

» উপজেলা চেয়ারম্যান পদে আশরাফ-সাঈদ প্রতিদ্বন্দ্বিতার আভাস, ১৪ জন বৈধ ঘোষিত

» আগামীকাল ময়মনসিংহ মেতে উঠবে স্বাধীনতা কনসার্টে

» ভাষা শহীদদের প্রতি সংসদ সদস্য মোহিত উর রহমান শান্তর শ্রদ্ধাঞ্জলী

» ১৪৭ বেকার তরুণ তরুণীকে চাকুরির প্রস্তুতি কর্মশালা করালেন এমপি মোহিত উর রহমান শান্ত

» হালুয়াঘাট-ধোবাউড়ায় ৯ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ বৃদ্ধি ; কৃষি সেচে গুরুত্ব এমপির

আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

২২ সি কে ঘোষ রোড, ময়মনসিংহ
বার্তা কক্ষ : ০১৭৩৬ ৫১৪ ৮৭২
ইমেইল : dailyjonomot@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার দৈনিক জনমত .কম

কারিগরি সহযোগিতায় BDiTZone.com

,

basic-bank

শামীম এন্টারপ্রাইজের জুটমিলে গণধর্ষণ; দুই আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

বিল্লাল হোসেন প্রান্তঃ আপডেটঃ

ময়মনসিংহের চরাঞ্চলে শামীম এন্টারপ্রাইজের মালিকানাধীন জুটমিলের নারী শ্রমিক (তাতী) কে গণধর্ষণ মামলার প্রধান দুই আসামি আদালতে (১৬৪)স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে।

 

 

গণধর্ষণ মামলায় গ্রেফতারকৃত আসামি আরিফ ২৩ জুলাই স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। তার দেয়া তথ্যমূলে অজ্ঞাত চার আসামির একজন সোহাগকে গ্রেফতার করে কোতোয়ালী থানা পুলিশ। ২৮ জুলাই রবিবার সোহাগ বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারা মোতাবেক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। তবে এ মামলার প্রধান আাসমি ইসমাঈল (২৫) কে এখনও পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি।

 

 

মামলার বিবরণে জানা যায়, ধর্ষিতা বয়ড়া ছালাকান্দা এলাকার তিন সন্তানের জননী। সে তিন বছর যাবৎ ময়মনসিংহের চরাঞ্চলে শম্ভুগঞ্জ শামীম এন্টারপ্রাইজের মালিকানাধিন জুট মিলে তাতী শ্রমিক হিসাবে কর্মরত। কর্মের সুবাদে তার সাথে পরিচয় হয় জুট মিলের তাতী ইসমাঈলের সাথে।

 

 

ঘটনার দিন ২০ জুন রাত ৮ টার দিকে ইসমাঈল ধর্ষিতাকে কথা আছে বলে জুট মিলের ভেতরে ১ম শ্রেনীর কোয়ার্টারের ছাদে নিয়ে যায়। সেখানে ধর্ষিতার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে ইসমাঈলের পরিকল্পনা অনুযায়ী আগে থেকে উৎপেতে থাকা তার চার বন্ধু আসে। ধর্ষিতাকে একটি পরিত্যক্ত পানির ট্যাংকির ভিতরে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এবং ধর্ষিতার মোবাইল,স্বর্ণের চেইন,নগদ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

 

 

ঘটনার ৫ দিন পর ২৬ জুন ইসমাঈলের বোন জামাই মামলার দ্বিতীয় আসামি আরিফ(২৫) আপোষ মিমাংশার কথা বলে ধড়ষিতাকে তাদের বাড়িতে নিয়ে একমাস আটকে রাখে। এবং প্রতিনিয়ত বিভিন্ন হুমকি দিতে থাকে কোন মামলা মোকদ্দমা না করার জন্য। পরে ১৭ জুলাই ধর্ষিতাকে তার স্বামীর কাছে বুঝিয়ে দেয়ার কথা বলে শম্ভুগঞ্জ চামড়া বাজার মাদ্রাসার কাছে ছেড়ে দিয়ে বিবাদীরা পালিয়ে যায়।

 

 

এ ঘটনায় ধর্ষিতা সমালোচনার মুখে তার স্বামী ও আত্মীয় স্বজনের পরামর্শে ২৩ জুলাই কোতোয়ালী থানায় নিজে বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। মামলায় ইসমাঈল ও আরিফ এর নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাত চারজনকে আসামি করা হয়।

 

 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি তদন্ত খন্দকার শাকের আহমেদ জানান, জুটমিলে গণধর্ষণ মামলার দুই আসামিকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। আজ (২৮ জুলাই) সোহাগ নামের এজাহার নামিয় আসামি বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারামূলে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। তিনি বলেন, বাকি আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশি পক্রিয়া চলছে। আইনের হাত থেকে কেউ ছাড় পাবেনা।

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ খবর



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

২২ সি কে ঘোষ রোড, ময়মনসিংহ
বার্তা কক্ষ : ০১৭৩৬ ৫১৪ ৮৭২
ইমেইল : dailyjonomot@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার দৈনিক জনমত .কম

কারিগরি সহযোগিতায় BDiTZone.com