রাত ৮:০৬ | মঙ্গলবার | ৫ই মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ২১শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শামীম এন্টারপ্রাইজের জুটমিলে গণধর্ষণ; দুই আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

বিল্লাল হোসেন প্রান্তঃ আপডেটঃ

ময়মনসিংহের চরাঞ্চলে শামীম এন্টারপ্রাইজের মালিকানাধীন জুটমিলের নারী শ্রমিক (তাতী) কে গণধর্ষণ মামলার প্রধান দুই আসামি আদালতে (১৬৪)স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে।

 

 

গণধর্ষণ মামলায় গ্রেফতারকৃত আসামি আরিফ ২৩ জুলাই স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। তার দেয়া তথ্যমূলে অজ্ঞাত চার আসামির একজন সোহাগকে গ্রেফতার করে কোতোয়ালী থানা পুলিশ। ২৮ জুলাই রবিবার সোহাগ বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারা মোতাবেক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। তবে এ মামলার প্রধান আাসমি ইসমাঈল (২৫) কে এখনও পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি।

 

 

মামলার বিবরণে জানা যায়, ধর্ষিতা বয়ড়া ছালাকান্দা এলাকার তিন সন্তানের জননী। সে তিন বছর যাবৎ ময়মনসিংহের চরাঞ্চলে শম্ভুগঞ্জ শামীম এন্টারপ্রাইজের মালিকানাধিন জুট মিলে তাতী শ্রমিক হিসাবে কর্মরত। কর্মের সুবাদে তার সাথে পরিচয় হয় জুট মিলের তাতী ইসমাঈলের সাথে।

 

 

ঘটনার দিন ২০ জুন রাত ৮ টার দিকে ইসমাঈল ধর্ষিতাকে কথা আছে বলে জুট মিলের ভেতরে ১ম শ্রেনীর কোয়ার্টারের ছাদে নিয়ে যায়। সেখানে ধর্ষিতার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে ইসমাঈলের পরিকল্পনা অনুযায়ী আগে থেকে উৎপেতে থাকা তার চার বন্ধু আসে। ধর্ষিতাকে একটি পরিত্যক্ত পানির ট্যাংকির ভিতরে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এবং ধর্ষিতার মোবাইল,স্বর্ণের চেইন,নগদ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

 

 

ঘটনার ৫ দিন পর ২৬ জুন ইসমাঈলের বোন জামাই মামলার দ্বিতীয় আসামি আরিফ(২৫) আপোষ মিমাংশার কথা বলে ধড়ষিতাকে তাদের বাড়িতে নিয়ে একমাস আটকে রাখে। এবং প্রতিনিয়ত বিভিন্ন হুমকি দিতে থাকে কোন মামলা মোকদ্দমা না করার জন্য। পরে ১৭ জুলাই ধর্ষিতাকে তার স্বামীর কাছে বুঝিয়ে দেয়ার কথা বলে শম্ভুগঞ্জ চামড়া বাজার মাদ্রাসার কাছে ছেড়ে দিয়ে বিবাদীরা পালিয়ে যায়।

 

 

এ ঘটনায় ধর্ষিতা সমালোচনার মুখে তার স্বামী ও আত্মীয় স্বজনের পরামর্শে ২৩ জুলাই কোতোয়ালী থানায় নিজে বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। মামলায় ইসমাঈল ও আরিফ এর নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাত চারজনকে আসামি করা হয়।

 

 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি তদন্ত খন্দকার শাকের আহমেদ জানান, জুটমিলে গণধর্ষণ মামলার দুই আসামিকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। আজ (২৮ জুলাই) সোহাগ নামের এজাহার নামিয় আসামি বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারামূলে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। তিনি বলেন, বাকি আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশি পক্রিয়া চলছে। আইনের হাত থেকে কেউ ছাড় পাবেনা।

Print Friendly, PDF & Email

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» আগামীকাল ময়মনসিংহ মেতে উঠবে স্বাধীনতা কনসার্টে

» ভাষা শহীদদের প্রতি সংসদ সদস্য মোহিত উর রহমান শান্তর শ্রদ্ধাঞ্জলী

» ১৪৭ বেকার তরুণ তরুণীকে চাকুরির প্রস্তুতি কর্মশালা করালেন এমপি মোহিত উর রহমান শান্ত

» হালুয়াঘাট-ধোবাউড়ায় ৯ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ বৃদ্ধি ; কৃষি সেচে গুরুত্ব এমপির

» ময়মনসিংহ সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আলোচনায় আবু সাঈদ

» সংবর্ধনা বাতিল করে শীতার্তদের মাঝে এমপি মোহিত উর রহমানের কম্বল বিতরণ

» ব্রহ্মপুত্রে নৌকায় চড়ে অনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করলেন মোহিত উর রহমান শান্ত

» ময়মনসিংহে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে উল্লাসভরে ফুলেল শুভেচ্ছায় সমাবেশ

» লেঃ কর্ণেল (অবঃ)নজরুল ইসলামের হস্তক্ষেপে দীর্ঘদিনের জমি সংক্রান্ত বিরোধের অবসান

» ময়মনসিংহ-৪ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন মোহিত উর রহমান শান্ত

» আবারও জাপাকে দিলে জনগনের আস্থা হারাবে আওয়ামী লীগ

» ময়মনসিংহ-৪ আসনে মনোনয়ন কিনেছেন মহানগর সাধারণ সম্পাদক মোহিত উর রহমান শান্ত

» জনসভায় জনসমুদ্র ; সদরের প্রত্যাশা মোহিত উর রহমান শান্ত

» সংবিধান মেনে নির্বাচনে আসেন, আমরাও আসবো-বিএনপিকে মোহিত উর রহমান শান্ত

» প্রতীকী অটোরিকশা চালিয়ে অবরোধের বিরুদ্ধে মোহিত উর রহমান শান্তর প্রতিবাদ

আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

২২ সি কে ঘোষ রোড, ময়মনসিংহ
বার্তা কক্ষ : ০১৭৩৬ ৫১৪ ৮৭২
ইমেইল : dailyjonomot@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার দৈনিক জনমত .কম

কারিগরি সহযোগিতায় BDiTZone.com

,

basic-bank

শামীম এন্টারপ্রাইজের জুটমিলে গণধর্ষণ; দুই আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

বিল্লাল হোসেন প্রান্তঃ আপডেটঃ

ময়মনসিংহের চরাঞ্চলে শামীম এন্টারপ্রাইজের মালিকানাধীন জুটমিলের নারী শ্রমিক (তাতী) কে গণধর্ষণ মামলার প্রধান দুই আসামি আদালতে (১৬৪)স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে।

 

 

গণধর্ষণ মামলায় গ্রেফতারকৃত আসামি আরিফ ২৩ জুলাই স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। তার দেয়া তথ্যমূলে অজ্ঞাত চার আসামির একজন সোহাগকে গ্রেফতার করে কোতোয়ালী থানা পুলিশ। ২৮ জুলাই রবিবার সোহাগ বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারা মোতাবেক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। তবে এ মামলার প্রধান আাসমি ইসমাঈল (২৫) কে এখনও পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি।

 

 

মামলার বিবরণে জানা যায়, ধর্ষিতা বয়ড়া ছালাকান্দা এলাকার তিন সন্তানের জননী। সে তিন বছর যাবৎ ময়মনসিংহের চরাঞ্চলে শম্ভুগঞ্জ শামীম এন্টারপ্রাইজের মালিকানাধিন জুট মিলে তাতী শ্রমিক হিসাবে কর্মরত। কর্মের সুবাদে তার সাথে পরিচয় হয় জুট মিলের তাতী ইসমাঈলের সাথে।

 

 

ঘটনার দিন ২০ জুন রাত ৮ টার দিকে ইসমাঈল ধর্ষিতাকে কথা আছে বলে জুট মিলের ভেতরে ১ম শ্রেনীর কোয়ার্টারের ছাদে নিয়ে যায়। সেখানে ধর্ষিতার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে ইসমাঈলের পরিকল্পনা অনুযায়ী আগে থেকে উৎপেতে থাকা তার চার বন্ধু আসে। ধর্ষিতাকে একটি পরিত্যক্ত পানির ট্যাংকির ভিতরে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এবং ধর্ষিতার মোবাইল,স্বর্ণের চেইন,নগদ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

 

 

ঘটনার ৫ দিন পর ২৬ জুন ইসমাঈলের বোন জামাই মামলার দ্বিতীয় আসামি আরিফ(২৫) আপোষ মিমাংশার কথা বলে ধড়ষিতাকে তাদের বাড়িতে নিয়ে একমাস আটকে রাখে। এবং প্রতিনিয়ত বিভিন্ন হুমকি দিতে থাকে কোন মামলা মোকদ্দমা না করার জন্য। পরে ১৭ জুলাই ধর্ষিতাকে তার স্বামীর কাছে বুঝিয়ে দেয়ার কথা বলে শম্ভুগঞ্জ চামড়া বাজার মাদ্রাসার কাছে ছেড়ে দিয়ে বিবাদীরা পালিয়ে যায়।

 

 

এ ঘটনায় ধর্ষিতা সমালোচনার মুখে তার স্বামী ও আত্মীয় স্বজনের পরামর্শে ২৩ জুলাই কোতোয়ালী থানায় নিজে বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। মামলায় ইসমাঈল ও আরিফ এর নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাত চারজনকে আসামি করা হয়।

 

 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি তদন্ত খন্দকার শাকের আহমেদ জানান, জুটমিলে গণধর্ষণ মামলার দুই আসামিকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। আজ (২৮ জুলাই) সোহাগ নামের এজাহার নামিয় আসামি বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারামূলে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। তিনি বলেন, বাকি আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশি পক্রিয়া চলছে। আইনের হাত থেকে কেউ ছাড় পাবেনা।

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ খবর



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

২২ সি কে ঘোষ রোড, ময়মনসিংহ
বার্তা কক্ষ : ০১৭৩৬ ৫১৪ ৮৭২
ইমেইল : dailyjonomot@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার দৈনিক জনমত .কম

কারিগরি সহযোগিতায় BDiTZone.com