রাত ১০:৪৬ | রবিবার | ১৮ই এপ্রিল, ২০২১ ইং | ৫ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ময়মনসিংহে রক্ষা পাচ্ছেনা মাস্ক হকাররাও; তোলাবাজদের দৌরাত্ম অপ্রতিরোধ্য!

বিল্লাল হোসেন প্রান্তঃ

“মাস্ক নেন মাস্ক। মরণব্যাধী করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে মাস্ক ব্যবহার করুন।” যানযট ঠেলে এভাবেই চলন্ত মাস্ক বিহীন মানুষের হাতে মাস্ক তুলে দিতে ছুটে যায় মাস্ক হকাররা। পেটের তাগিদে হাতে কিংবা জুড়িতে করে ময়মনসিংহ নগরীর সড়কে মাস্কসহ বিভিন্ন সুরক্ষা সামগ্রী ফেরি করে জীবিকা নির্বাহ করছে প্রায় শতাধিক মাস্ক হকার। তাদের দোকান দিয়ে বসার সামর্থ নেই।

 

 

সকাল থেকে রাত অবধি ময়মনসিংহ নগরীর প্রাণকেন্দ্র গাঙ্গিনারপাড় এলাকায় মাস্ক ফেরি করে নিজের ও পরিবারের জীবিকা নির্বাহ করছে ওরা । একইসাথে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে অবদানও রাখছে। সরকার করোনা প্রতিরোধে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক ঘোষনা করেছে। রাজনৈতিক, সামাজিক, প্রশাসনিকভাবে কর্মসূচী ঘোষনা করে মাস্ক বিতরণ করেছেন। এসব কর্মসূচীগুলো প্রতিদিন হয় না। তবে মাস্ক বিক্রেতা হকাররা প্রতিদিন তাদের জীবিকার টানে মাস্ক ফেরি করছে। তারা আছে বলেই অনেক অসচেতন মানুষ মাস্ক সামনে পেয়ে তা কিনে নিচ্ছে। সেদিক থেকে সমাজ সচেতনতায় ভূমিকা রাখছে মাস্ক হকাররা। সেই হকারদের কাছ থেকেও নেয়া হচ্ছে চাঁদা। বিষয়টি সচেতন মহলে ব্যাপক নেতিবাচক ঘটনা বলে প্রতিয়মান হয়েছে। চিহ্নিত চাঁদাবাজদের অতি দ্রুত আইনের আওতায় এনে প্রতিহত করার মন্তব্য এসেছে।

 

 

কথা বলে জানা গেছে, সারাদিন অক্লান্ত পরিশ্রমে ৫০ পিছ মাস্ক বিক্রি করলে মূনাফা দাঁড়ায় ১৫০ টাকা। সেই লাভের অংশ থেকে ফুটপাত চাঁদার নামে স্থানীয় চাঁদাবাজদের হাতেই তুলে দিতে হয় ৫০ টাকা করে। প্রতি ছোট দোকানের জন্য ৫০ টাকা বড় হকারীকে দিনশেষ গুনতে হয় ১০০ টাকা করে। যা “মরার উপর খড়ার ঘা” মনে হলেও উপায় নেই।

 

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক মাস্ক হকার জানান, সারাদিন পরিশ্রম করে সামান্য পুঁজি খাটিয়ে যে টাকা লাভ করি তা দিয়ে সংসার না চলেনা। তার উপর পুলিশের নামে,স্থানীয় কিছু নেতাদের নামে প্রতিদিন নির্ধারিত হারে টাকা দিতে হয়। এক মাস্ক হকার আশে পাশে তাকিয়ে অনেকটা ভয়ে ভয়ে বলছিলো, “ভাই আপনি সাংবাদিক বললে নিউজ করে দিবেন। এরপর জ্বালা পোহাইতে হইবো আমগোর। ওরা জানতে পারলে এইনো বইবার দিতনা। অহনতো কিছু একটা কইরা পেট চালাইতে পারতাছি পরে বেকার হইয়া জামু”।

কারা নেয় এই চাদাঁর টাকা? “আলাপচারিতায় একাধিক নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ফুটপাত হকার উৎপল ও সজিব নামের দুইজনের কথা বলেন। তারা আরও জানান, তোলাবাজরা পুলিশ ও কিছু নেতাকে ম্যানেজের নাম করেই প্রতিদিন এই টাকা তুলে থাকে।” প্রতিদিন গাঙ্গিনারপাড় এলাকায় রাস্তার দুপাশে ছোট বড় মিলিয়ে গড়ে ৩শ ফুটপাত দোকান থেকে প্রায় ২৮ হাজার টাকা চাঁদা তোলা হয় বলে সূত্রে জানায়। তবে শীত মৌসুমে দোকানের সংখ্যা আরও বেশি হয়ে থাকে বলে সূত্রে জানা গেছে।

 

 

তবে এ বিষয়ে গাঙ্গিনারপাড়ে এক জুয়েলারি দোকানের সামনে বসা মাস্ক হকার অঞ্জন টাকা বা চাঁদা দেয়ার বিষয়টি পুরোপুরি অস্বীকার করে এ বিষয়ে কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, আমি দাদার দোকানের (জুয়েলারি) সামনে বসি অন্য কাউকে টাকা দেই না। মেহেদী নামের আরেক তরুণ মাস্ক হকার বলেন, এসব বিষয় নিয়ে কথা বলে আমি বিপদে পড়তে চাই না।

সূত্রে জানা গেছে, ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সুপার মোহাঃ আহমার উজ্জামান ফুটপাতে চাঁদাবাজি বন্ধে কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন। বন্ধ হয়েছে পতিতা পল্লীতে দাদন ব্যবসা ও চোলাই মদের অবৈধ ব্যবসা। আটক হয়েছে বিপুল পরিমানে চোলাই মদ। এসপির কঠোর অবস্থানে পুলিশ এখানে নড়েচড়ে বসেছে। ১ নং ফাঁড়ি ইনচার্জ ইন্সপেক্টর দুলাল আকন্দ এখানে নির্দেশনা অনুযায়ী কঠোর। তবে পুলিশের এ কঠোরতার মাঝেই পুলিশের নামে ফুটপাতে চলছে নিরব চাঁদাবাজি। তোলাবাজদের দৌরাত্ম এখানে অনেকটাই অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে।

 

 

জানা গেছে, পুলিশ প্রশাসনের ফুটপাতে চাঁদাবাজি বন্ধের কঠোর অবস্থানকে অকার্যকর করছে প্রভাবশালী কয়েকজন নেতার ছত্রছায়ায় থাকা গুটি কয়েক তোলাবাজ। যারা প্রকাশ্যে ওই নেতার নাম ভাঙ্গিয়ে নিজের প্রভাব বলয় সৃষ্টি করে নির্বিগ্নে চাঁদাবাজি করছে বলে সূত্র জানায়। নগরীর গাঙ্গিনারপাড় ফুটপাত হকার মুক্ত করার জনদাবি অনেকটাই শিথিল হয়ে পড়ে অসহায় হকারদের মানবিক দাবির কাছে। তবে এর সুযোগে প্রতিদিন হাজার হাজার, মাসে লাখ টাকা লুটে নিচ্ছে চাঁদাবাজরা। যা এখানে একদিন প্রতিদিনের ওপেন সিক্রেট।

Print Friendly, PDF & Email
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন : Share on Facebook
Facebook
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আস্থা রাখুন- অষ্টধারে মোহিত উর রহমান শান্ত

» করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় ময়মনসিংহ পুলিশের মাস্ক ক্যাম্পেইন কার্যক্রমের উদ্বোধন

» উন্নয়নের পাশে থাকতে শেখ হাসিনায় আস্থা রাখুন- বিশাল জনসভায় মোহিত উর রহমান শান্ত

» ময়মনসিংহে “বঙ্গবন্ধু নবম বাংলাদেশ গেমস” ভারোত্তোলন প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত

» বিএনপির গন্ধ মুছতে আপনাকে আরও কিছু বছর আওয়ামী লীগ করতে হবে- মোহিত উর রহমান শান্ত

» শেখ হাসিনা ছাড়া আর কারও উপর আস্থা রাখার দরকার নাই-মোহিত উর রহমান শান্ত

» স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে বিএনপি জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করতে চায়- নজরুল ইসলাম খান

» হাসান হত্যাকান্ডে পাগলপ্রায় মা,হতবাক গ্রামবাসী(ভিডিও সহ)

» ভূয়া বিয়ের সনদ তৈরি করে চার সন্তানের মাকে পোষ্টার ছেপে হয়রানি ; প্রতারক হানিফ গ্রেফতার

» ময়মনসিংহ ডিবি’র অভিযানে ৩ হাজার পিস ইয়াবাসহ ৪ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

» কোতোয়ালী পুলিশের তৎপরতায় আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নতি; ডাকাতি শূন্যের কোঠায়

» হাইব্রিড নিধনে শেখ হাসিনা তৎপর আগামীতে এদের অস্তিত্ব থাকবেনা দাপুনিয়া কর্মীসভায় শান্ত

» রাজনৈতিক বেনিয়াদের বিরুদ্ধে ঐক্যের ডাক; উচ্ছ্বাসে উত্তাল বিদ্রোহী মৌজা আকুয়া

» ময়মনসিংহ জেলায় শ্রেষ্ঠ ওসির পুরস্কার পেলেন মোঃ মাহমুদুল হাসান

» ৩২ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগে রাজনৈতিক হৃদ্রতার মেলবন্ধন

আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

২২ সি কে ঘোষ রোড, ময়মনসিংহ
বার্তা কক্ষ : ০১৭৩৬ ৫১৪ ৮৭২
ইমেইল : dailyjonomot@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার দৈনিক জনমত .কম

কারিগরি সহযোগিতায় BDiTZone.com

,

basic-bank

ময়মনসিংহে রক্ষা পাচ্ছেনা মাস্ক হকাররাও; তোলাবাজদের দৌরাত্ম অপ্রতিরোধ্য!

বিল্লাল হোসেন প্রান্তঃ

“মাস্ক নেন মাস্ক। মরণব্যাধী করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে মাস্ক ব্যবহার করুন।” যানযট ঠেলে এভাবেই চলন্ত মাস্ক বিহীন মানুষের হাতে মাস্ক তুলে দিতে ছুটে যায় মাস্ক হকাররা। পেটের তাগিদে হাতে কিংবা জুড়িতে করে ময়মনসিংহ নগরীর সড়কে মাস্কসহ বিভিন্ন সুরক্ষা সামগ্রী ফেরি করে জীবিকা নির্বাহ করছে প্রায় শতাধিক মাস্ক হকার। তাদের দোকান দিয়ে বসার সামর্থ নেই।

 

 

সকাল থেকে রাত অবধি ময়মনসিংহ নগরীর প্রাণকেন্দ্র গাঙ্গিনারপাড় এলাকায় মাস্ক ফেরি করে নিজের ও পরিবারের জীবিকা নির্বাহ করছে ওরা । একইসাথে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে অবদানও রাখছে। সরকার করোনা প্রতিরোধে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক ঘোষনা করেছে। রাজনৈতিক, সামাজিক, প্রশাসনিকভাবে কর্মসূচী ঘোষনা করে মাস্ক বিতরণ করেছেন। এসব কর্মসূচীগুলো প্রতিদিন হয় না। তবে মাস্ক বিক্রেতা হকাররা প্রতিদিন তাদের জীবিকার টানে মাস্ক ফেরি করছে। তারা আছে বলেই অনেক অসচেতন মানুষ মাস্ক সামনে পেয়ে তা কিনে নিচ্ছে। সেদিক থেকে সমাজ সচেতনতায় ভূমিকা রাখছে মাস্ক হকাররা। সেই হকারদের কাছ থেকেও নেয়া হচ্ছে চাঁদা। বিষয়টি সচেতন মহলে ব্যাপক নেতিবাচক ঘটনা বলে প্রতিয়মান হয়েছে। চিহ্নিত চাঁদাবাজদের অতি দ্রুত আইনের আওতায় এনে প্রতিহত করার মন্তব্য এসেছে।

 

 

কথা বলে জানা গেছে, সারাদিন অক্লান্ত পরিশ্রমে ৫০ পিছ মাস্ক বিক্রি করলে মূনাফা দাঁড়ায় ১৫০ টাকা। সেই লাভের অংশ থেকে ফুটপাত চাঁদার নামে স্থানীয় চাঁদাবাজদের হাতেই তুলে দিতে হয় ৫০ টাকা করে। প্রতি ছোট দোকানের জন্য ৫০ টাকা বড় হকারীকে দিনশেষ গুনতে হয় ১০০ টাকা করে। যা “মরার উপর খড়ার ঘা” মনে হলেও উপায় নেই।

 

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক মাস্ক হকার জানান, সারাদিন পরিশ্রম করে সামান্য পুঁজি খাটিয়ে যে টাকা লাভ করি তা দিয়ে সংসার না চলেনা। তার উপর পুলিশের নামে,স্থানীয় কিছু নেতাদের নামে প্রতিদিন নির্ধারিত হারে টাকা দিতে হয়। এক মাস্ক হকার আশে পাশে তাকিয়ে অনেকটা ভয়ে ভয়ে বলছিলো, “ভাই আপনি সাংবাদিক বললে নিউজ করে দিবেন। এরপর জ্বালা পোহাইতে হইবো আমগোর। ওরা জানতে পারলে এইনো বইবার দিতনা। অহনতো কিছু একটা কইরা পেট চালাইতে পারতাছি পরে বেকার হইয়া জামু”।

কারা নেয় এই চাদাঁর টাকা? “আলাপচারিতায় একাধিক নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ফুটপাত হকার উৎপল ও সজিব নামের দুইজনের কথা বলেন। তারা আরও জানান, তোলাবাজরা পুলিশ ও কিছু নেতাকে ম্যানেজের নাম করেই প্রতিদিন এই টাকা তুলে থাকে।” প্রতিদিন গাঙ্গিনারপাড় এলাকায় রাস্তার দুপাশে ছোট বড় মিলিয়ে গড়ে ৩শ ফুটপাত দোকান থেকে প্রায় ২৮ হাজার টাকা চাঁদা তোলা হয় বলে সূত্রে জানায়। তবে শীত মৌসুমে দোকানের সংখ্যা আরও বেশি হয়ে থাকে বলে সূত্রে জানা গেছে।

 

 

তবে এ বিষয়ে গাঙ্গিনারপাড়ে এক জুয়েলারি দোকানের সামনে বসা মাস্ক হকার অঞ্জন টাকা বা চাঁদা দেয়ার বিষয়টি পুরোপুরি অস্বীকার করে এ বিষয়ে কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, আমি দাদার দোকানের (জুয়েলারি) সামনে বসি অন্য কাউকে টাকা দেই না। মেহেদী নামের আরেক তরুণ মাস্ক হকার বলেন, এসব বিষয় নিয়ে কথা বলে আমি বিপদে পড়তে চাই না।

সূত্রে জানা গেছে, ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সুপার মোহাঃ আহমার উজ্জামান ফুটপাতে চাঁদাবাজি বন্ধে কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন। বন্ধ হয়েছে পতিতা পল্লীতে দাদন ব্যবসা ও চোলাই মদের অবৈধ ব্যবসা। আটক হয়েছে বিপুল পরিমানে চোলাই মদ। এসপির কঠোর অবস্থানে পুলিশ এখানে নড়েচড়ে বসেছে। ১ নং ফাঁড়ি ইনচার্জ ইন্সপেক্টর দুলাল আকন্দ এখানে নির্দেশনা অনুযায়ী কঠোর। তবে পুলিশের এ কঠোরতার মাঝেই পুলিশের নামে ফুটপাতে চলছে নিরব চাঁদাবাজি। তোলাবাজদের দৌরাত্ম এখানে অনেকটাই অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে।

 

 

জানা গেছে, পুলিশ প্রশাসনের ফুটপাতে চাঁদাবাজি বন্ধের কঠোর অবস্থানকে অকার্যকর করছে প্রভাবশালী কয়েকজন নেতার ছত্রছায়ায় থাকা গুটি কয়েক তোলাবাজ। যারা প্রকাশ্যে ওই নেতার নাম ভাঙ্গিয়ে নিজের প্রভাব বলয় সৃষ্টি করে নির্বিগ্নে চাঁদাবাজি করছে বলে সূত্র জানায়। নগরীর গাঙ্গিনারপাড় ফুটপাত হকার মুক্ত করার জনদাবি অনেকটাই শিথিল হয়ে পড়ে অসহায় হকারদের মানবিক দাবির কাছে। তবে এর সুযোগে প্রতিদিন হাজার হাজার, মাসে লাখ টাকা লুটে নিচ্ছে চাঁদাবাজরা। যা এখানে একদিন প্রতিদিনের ওপেন সিক্রেট।

Print Friendly, PDF & Email
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন : Share on Facebook
Facebook
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin

সর্বশেষ খবর



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

২২ সি কে ঘোষ রোড, ময়মনসিংহ
বার্তা কক্ষ : ০১৭৩৬ ৫১৪ ৮৭২
ইমেইল : dailyjonomot@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার দৈনিক জনমত .কম

কারিগরি সহযোগিতায় BDiTZone.com